ভদন্ত প্রজ্ঞাপাল ভিক্ষু ও ভদন্ত প্রজ্ঞাপ্রিয় ভিক্ষু ‘থের’ অভিধায় অভিষিক্ত

প্রজ্ঞানন্দ ভিক্ষুঃ
কক্সবাজারের রামু উপজেলার উত্তর ফতেঁখারকুল বিবেকারাম বিহারের প্রজ্ঞামিত্র বৌদ্ধ ভিক্ষু-শ্রামণ প্রশিক্ষণ ও সাধনা পরিবেণ এর অন্তেবাসী ভদন্ত প্রজ্ঞাপাল ভিক্ষু ও ভদন্ত প্রজ্ঞাপ্রিয় ভিক্ষু ‘থের’ অভিধায় অভিষিক্ত হয়েছেন।

প্রজ্ঞামিত্র বৌদ্ধ ভিক্ষু-শ্রামণ প্রশিক্ষণ ও সাধনা পরিবেণ প্রতিষ্ঠার এক দশক পূর্তি উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত জাতীয় বৌদ্ধ মহাসম্মেলনে এই অভিধা প্রদান করা হয়।

গত ২৮ ও ২৯ মার্চ দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠানের এক দশক পূর্তি উদযাপন উপলক্ষে বিহার ও সীমাঘর উৎসর্গ, সেমিনার, সংবর্ধনা প্রদান, উপসম্পদা প্রদান ও জাতীয় বৌদ্ধ মহাসম্মেলন রামু উপজেলার উত্তর ফতেঁখারকুল বিবেকারাম বিহারে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের সমাপনী দিনে তাদেরকে থের অভিধায় বরণ করা হয়।

ভদন্ত প্রজ্ঞাপাল ভিক্ষু ও ভদন্ত প্রজ্ঞাপ্রিয় ভিক্ষু তারা দুজনই ফতেঁখারকুল বিবেকারাম বিহারের অধ্যক্ষ ও প্রজ্ঞামিত্র বৌদ্ধ ভিক্ষু-শ্রামণ প্রশিক্ষণ ও সাধনা পরিবেণ এর প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক উদিয়মান পরিশ্রমী বৌদ্ধ ভিক্ষু ভদন্ত শীলমিত্র ভিক্ষুর স্নেহপ্রতীম শিষ্য।

বর্তমান ভদন্ত প্রজ্ঞাপাল ভিক্ষু কক্সবাজার সদরের জেল গেইটস্থ অগ্রমহাপন্ডিত প্রজ্ঞালোক বৌদ্ধ বিহারের প্রতিষ্ঠাতা ও অধ্যক্ষ হিসেবে আছেন। অপরদিকে ভদন্ত প্রজ্ঞাপ্রিয় ভিক্ষু প্রজ্ঞামিত্র বৌদ্ধ ভিক্ষু-শ্রামণ প্রশিক্ষণ ও সাধনা পরিবেণ এর অন্তেবাসী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তারা দুজনই সুদেশক।

উল্লেখ্য, উপসম্পদা গ্রহণনের পরবর্তী কোন ভিক্ষু দশ বর্ষাবাস যাপন করলে কিংবা দশ বছর পূর্ণ করলে বিনয়-বিধান মতে তাকে ‘থের’ সম্মতি দেওয়া হয়।