বসন্তের মিষ্টি রোদে বর্ণোজ্জ্বল দিন কাটাল ঢাকাস্থ রামুবাসী

বার্তা পরিবেশকঃ
শনিবার ঢাকার অদূরে পূর্বাচলস্থ জিন্দা পার্ক হয়ে উঠেছিল ঢাকাস্থ রামুবাসীদের পারিবারিক মিলনমেলা। রামু সমিতি, ঢাকার উদ্যোগে ‘চড়ুইভাতি ২০১৯’ হয়ে উঠেছিল ব্যস্ত ঢাকার দমফাটা কর্মব্যস্ততার ফাকে এক খন্ড অবসর।

কয়েকশ রামুবাসীদের ক্ষণে ক্ষণে আড্ডা, উপভোগ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ইত্যবসরে মজাদার খাওয়া দাওয়া ও বাচ্চাদের জন্য ছিল নানা আয়োজন। ঘুড়ি উড়ানোব মত ঐতিহ্যবাহী আয়োজন যেমন যুবা- প্রৌঢ়দের স্মৃতিচারিত করেছে, একইভাবে মুরগদৌড় বাচ্চাদের মুগ্ধতা দিয়েছে। ছিল আরো নানা ধরণের আয়োজন।

দিনব্যাপী চড়ুইভাতির শেষপর্বে বিভিন্ন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও র‍্যাফেল ড্র পরিচালনা করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন রামু সমিতির সভাপতি নুর মোহাম্মদ ও পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সুজন শর্মা। অন্যান্যের মধ্যে রামু সমিতির উপদেষ্টা বৃন্দ, কার্যকরী সদস্য, আজীবন সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

চড়ুইভাতির দ্বিতীয় পর্বে ২০১৯-২০২০ সালের জন্য নতুন কার্যকরী কমিটি ঘোষণা করেন সমিতির সম্মানিত সদস্য ব্যারিস্টার মিজান সাইদ। একত্রিশ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটিতে নুর মোহাম্মদ সভাপতি, সাইমুল আলম চৌধুরী সাধারণ সম্পাদক, মোহিব্বুল মোক্তাদীর তানিম সাংগাঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। এসময় সাবেক সচিব মাফরুহা সুলতানা, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী রবীন্দ্র শ্রী বড়ুয়া, ব্যারিস্টার নওরোজ ইমতিয়াজ রাসেল চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

সাবেক সচিব মাফরুহা সুলতানা তার বক্তব্যে বিদায়ী কার্যকরী কমিটির সদস্যদের আন্তরিকতা ও কর্তব্যনিষ্ঠতার প্রশংসা করেন ও নতুন কমিটিকে অভিনন্দিত করেন। ব্যারিস্টার মিজান সাইদ তার বক্তব্যে বলেন, রামু সমিতি কার্যত পুরো কক্সবাজারকেই প্রতিনিধিত্ব করছেন।

বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক সুজন শর্মা তার বক্তব্যে রামু সমিতির গতিশীলতার জন্য দল-মত নির্বিশেষে ব্যক্তিস্বার্থ বিসর্জন দিয়ে সমিতিকে গতিশীল করার উপর গুরুত্ব দেন।

র‍্যাফেল ড্র ও ক্রীড়ানুষ্ঠান পরিচালনা করেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইসলাম, বিজন শর্মা, মোহাম্মদ ইলিয়াস, সাজেদুল আলম মুরাদ, মোয়াজ্জেম হোসেন, এডভোকেট রাবেয়া হক লিলি প্রমুখ।