রামুর ঈদগড়ে প্রতিপক্ষের গুলিতে পল্লী চিকিৎসক খুন

হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী :

কক্সবাজারের রামুর ঈদগড়ে এবার প্রতিপক্ষের গুলিতে নিজ বাড়িতে খুন হয়েছেন মহিউদ্দিন (৪০) নামের এক পল্লী চিকিৎসক। বুধবার দিবাগত রাতে জেলার ক্রাইমজোন খ্যাত দুর্গম অঞ্চল ঈদগড় ইউনিয়নের মোহাম্মদ শরীফ পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত মহিউদ্দিন ওই গ্রামের মৃত ফয়েজ আহাম্মদের ছেলে। তিনি পল্লী চিকিৎসকের পাশাপাশি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন।

ঈদগড় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি নুরুল ইসলাম বাঙালি জানান, গভীর রাতে হামলাকারীরা প্রথমে আওয়ামীলীগ নেতা মহিউদ্দিনের বাড়িঘর ভাঙচুর করে। এর পর মহিউদ্দিনকে লক্ষ্য করে রাত ২টা ৫ মিনিটে গুলি চালায়।

খবর পেয়ে ২টা ৩০ মিনিটে স্থানীয় পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। পরে তাঁকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর বৃহস্পতিবার ১৬জুন সকাল ৮টার দিকে মারা যান।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

একটি অশুভ শক্তির ইন্দনে এসব হচ্ছে বলে দাবি করেন নুরুল ইসলাম বাঙালি।

ঈদগড় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভুট্টো জানান, তিনি এলাকার বাইরে ছিলেন। স্থানীয়দের মাধ্যমে খবরটি শুনেছেন। ঘটনাস্থলে যাওয়ার পরই বিষয়টি নিয়ে কথা বলবেন।

রামু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আমাদের রামু ডটকমকে বলেন, ৬ মাস আগে খুন হওয়া ঈদগড় দক্ষিণ শরিফ পাড়া এলাকার শিক্ষক নুরুচ্ছফা ও তার ভাইদের সাথে ৯ শতক জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল মহিউদ্দিনের। কয়েকদিন আগে বিরোধিয় জমিতে পল্লী চিকিৎসক মহিউদ্দিন একটি ঘর নির্মাণের কাজ শুরু করেন। বুধবার রাতে মহিউদ্দিনের নির্মাণাধীন বাড়ীতে একা অবস্থানের খবর পেয়ে রাত ২ টার দিকে প্রতিপক্ষ তার উপর হামলা ও গুলি চালায়। এসময় তার চিৎকারে এলাকার লোকজন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

তিনি আরো বলেন, নিহতের মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এদিকে এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে নিহতের পরিবার সূত্র জানিয়েছে।