রামুতে অগ্নিকান্ডে শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুঃ ৪টি বসত বাড়ি ভষ্মিভূত

সোয়েব সাঈদ, রামুঃ
কক্সবাজারের রামুতে অগ্নিকান্ডে দেড় বছর বয়সী কন্যা শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও ৪টি বসত বাড়ি ভষ্মিভূত হয়েছে। এতে ৫০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অগ্নিকান্ডে নিহত কন্যা শিশু রুনাইছা (২) ব্যবসায়ি ছানা উল্লাহর মেয়ে। বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় উপজেলার চাকমারকুল ইউনিয়নের দক্ষিণ চাকমারকুল এলাকায় এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।
এতে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির মালিকরা হলেন, মৃত বদরুজ্জামানের ছেলে মো. ইসলাম মিস্ত্রী, মো. ইসলাম মিস্ত্রীর ছেলে ব্যবসায়ি ছানা উল্লাহ, আবদু শুক্কুর কালু ও কলিম উল্লাহ।

স্থানীয় বাসিন্দা কৃষি ব্যাংকের কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ জানান, সকালে ছানা উল্লাহর বাড়িতে বৈদ্যুতিক শট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হলে তা মূহুর্তে আশপাশের ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। আগুনের লেলিহান শিখা দাউ দাউ করে জ্বলতে দেখে একটি কক্ষে থাকা শিশু রুনাইছাকে আপ্রাণ চেষ্টা করেও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। ওই কক্ষেই আগুনে পুড়ে মর্মান্তিকভাবে মৃত্যুবরণ করে হতভাগ্য এ শিশুটি।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, এ অগ্নিকান্ডে ৫০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অগ্নিকান্ডের খবর পেয়ে কক্সবাজার এবং রামু থেকে ফায়ার সার্ভিসের দমকল কর্মীরা ঘটনাস্থলে এলেও ততক্ষণে সব কিছু পুড়ে শেষ হয়ে যায়। সেমি পাকা বাড়িগুলো পুরোপুরি ভষ্মিভূত হওয়ায় বর্তমানে তাদের ৪টি পরিবার নিঃস্ব হয়ে পড়েছে।

রামু ফায়ার সার্ভিস এর দমকল কর্মী ওবাইদুল হক আমাদের রামু ডটকম কে জানান, খবর পেয়ে কক্সবাজার এবং রামুর দমকল কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা চালায়। তবে চলাচলের পথ না থাকায় অগ্নিকান্ডস্থলে পৌঁছতে বিলম্ব হয়েছে। যে কারণে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়নি।

অগ্নিকান্ডের পরপরই ঘটনাস্থলে যান, রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. লুৎফুর রহমান, রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল মনসুর, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলী হোসেন, কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য নুরুল হক কোম্পানী ও চাকমারকুল ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম সিকদার।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. লুৎফুর রহমান অগ্নিকান্ডস্থল পরিদর্শন শেষে ক্ষতিগ্রস্ত ৪টি পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে মোট ৮০ হাজার টাকা অর্থ সহায়তা দেন। এসময় তিনি প্রশাসনের পক্ষ থেকে আরো সহায়তা প্রদানের আশ্বাস দেন।

কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য নুরুল হক কোম্পানী জানান, অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো অস্বচ্ছল। তারা সহায়-সম্বল হারিয়ে এখন নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। তিনি এসব পরিবারকে সহায়তা প্রদানের জন্য সংসদ সদস্য, জনপ্রতিনিধি, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ বিত্তবানদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।