বিপিএলের পারফরম্যান্স স্পেশাল নয় মাশরাফির কাছে

ক্রীড়া ডেস্কঃ
৪ ওভারে ১১ রানে ৪ উইকেট, টি-টোয়েন্টির যে কোনো বিচারে দুর্দান্ত বোলিং। সেই চার উইকেটে যখন থাকে বিশ্ব ক্রিকেটের বড় সব নাম, পারফরম্যান্সের ওজন বেড়ে যায় আরও। এরপরও নিজের এই পারফরম্যান্সকে বিশেষ কিছু মানতে নারাজ মাশরাফি বিন মুর্তজা। বিপিএল নয়, তার কাছে গুরুত্বপূর্ণ কেবল আন্তর্জাতিক ম্যাচের পারফরম্যান্সই।

এবারের বিপিএলে এখনও পর্যন্ত সেরা বোলিং পারফরম্যান্স উপহার দিলেন মাশরাফি মঙ্গলবার সন্ধ্যায়। দুর্দান্ত বোলিংয়ে গুঁড়িয়ে দিয়েছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইন আপ। দেশের সেরা ব্যাটসম্যান তামিম ইকবালকে ফিরিয়ে শুরু। চার ওভারের টানা স্পেলে পরে নিয়েছেন ইমরুল কায়েস, এভিন লুইস ও স্টিভেন স্মিথের উইকেট।

টি-টোয়েন্টিতে এটিই তার সেরা বোলিং। ক্যারিয়ারে চার উইকেট নিয়েছিলেন আগে কেবল একবারই, ২০১২ সালে বাংলাদেশ জাতীয় দলের হয়ে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে বেলফাস্টে ১৯ রানে ৪ উইকেট।

তবে এ দিনের পারফরম্যান্সকে সেরা তো নয়ই, সেই বিবেচনায়ই আনতে নারাজ মাশরাফি।

“আমি সবসময় আন্তর্জাতিক ম্যাচকে বিশেষভাবে বিবেচনা করি। আমার কাছে আন্তর্জাতিক ম্যাচের গুরুত্ব থাকে আরও বেশি। অবশ্যই যখন যেটা খেলি, নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে খেলার চেষ্টা করি। কিন্তু যদি বিশেষভাবে বিবেচনা করার কথা বলেন, তাহলে শুধু আন্তর্জাতিক ম্যাচ বিবেচনা করি। সব ম্যাচে শতভাগ দেওয়ার চেষ্টা করি। কিন্তু বিবেচনার ক্ষেত্রে শুধু আন্তর্জাতিক ম্যাচ।”

বিপিএলে মাশরাফির আগের সেরা পারফরম্যান্স ছিল ১৬ রানে ৩ উইকেট। সেই হিসেবে এ দিনের পারফরম্যান্স অন্তত বিপিএলে তার সেরা পারফরম্যান্স হতে পারে। তবে বিপিএলকে খুব গুরুত্ব দেন না বলে সেরার আলোচনায়ও খুব আগ্রহ নেই তার।

“আসলে এর আগে বিপিএলে যে ম্যাচগুলো খেলেছি, সেগুলো স্মরণ করতে পারছি না। যেটা বললাম, আন্তর্জাতিক ম্যাচ হলে অনেক আগেরগুলোও আমি স্মরণ করতে পারব। তবে যখন যেটা খেলি, সেটি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। আমার জন্যও ভালো হচ্ছে যে উইকেট পেলে আত্মবিশ্বাস বাড়ে। বিপিএলের পরপরই আমাদেরকে ওয়ানডে ফরম্যাটে ফিরতে হবে (নিউ জিল্যান্ড সফরে)। উইকেট পেতে থাকলে, ভালো বোলিং করলে আত্মবিশ্বাস থাকবে।”