ভোটের পর প্রথম কর্মসূচি নিয়ে আসছে ঐক্যফ্রন্ট

অনলাইন ডেস্কঃ
একাদশ সংসদ নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে পুনর্নির্বাচনের দাবিতে দুই-একদিনের নির্বাচন কমিশনে স্মারকলিপি দেবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

ভোটের পরদিন সোমবার রাতে ফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকের পর জোটের শীর্ষনেতা কামাল হোসেন এই কর্মসূচির কথা সাংবাদিকদের জানান।

রোববার ভোটগ্রহণ শেষের পরপরই বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ফল প্রত্যাখ্যান করে পুনঃনির্বাচনের দাবি জানিয়েছিল। সিইসি কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, তার সুযোগ নেই।

কামাল বলেন, “সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কল্পিত নির্বাচনের ফলাফল ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে।

“এ নির্বাচন বাতিল করে পুনঃনির্বাচনের দাবিতে ফ্রন্টের প্রার্থীগণ নির্বাচন কমিশনে স্মারকলিপি প্রদান ও কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। আজকের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে।”

কবে নাগাদ এই কর্মসূচি হবে- প্রশ্ন করা হলে কামাল বলেন, “দুই-এক দিনের মধ্যেই হবে।”

মতিঝিলে কামাল হোসেনের চেম্বারে ঐক্যফ্রন্টের দুই ঘণ্টার এই বৈঠকে জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিএনপির মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আবদুল আউয়াল মিন্টু, জেএসডির আ স ম আবদুর রব, গণফোরামের সুব্রত চৌধুরী, জগলুল হায়দার আফ্রিক, নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্না উপস্থিত ছিলেন।

ফ্রন্টের নেতারা জানান, যে বাম ও ইসলামী দলগুলো নির্বাচনের ফল যারা প্রত্যাখ্যান করেছে, তাদের সঙ্গেও যোগাযোগ করবেন তারা।

কামাল বলেন, “গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের নামে যে প্রহসনমূলক নাটক মঞ্চস্থ হয়েছে, তা সারাদেশের জনগণ প্রত্যক্ষ করেছে এবং হাড়ে হাড়ে তা উপলব্ধি করছে। নির্বাচনী ব্যবস্থাকে কীভাবে ধ্বংস করা হয়েছে, তা দেখিয়ে দিয়েছে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এবং আজ্ঞাবহ প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

“এই কথিত নির্বাচন আওয়ামী দলীয় সরকারকে বিজয়ী দেখালেও প্রকারান্তরে হেরেছে বাংলাদেশ ও তার ১৭ কোটি মানুষ। এর মধ্য দিয়ে কবর রচিত হয়েছে আমাদের বহু কাঙ্ক্ষিত গণতন্ত্রের।”

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের যে ৭ জন বিজয়ী হয়েছেন, তাদের শপথের বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানতে চাইলে কামাল বলেন, “এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব আমরা যথাসময়ে।”

বিএনপি মহাসচিব ফখরুল বলেন, “আগেই বলেছি, এই গোটা নির্বাচনই আমরা প্রত্যাখ্যান করেছি।”

সূত্রঃ বিডিনিউজ