মেসির নৈপুণ্যে গ্রুপ সেরা বার্সেলোনা

ক্রীড়া ডেস্কঃ
আগেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নকআউট পর্ব নিশ্চিত করা বার্সেলোনাকে এগিয়ে নেন লিওনেল মেসি। আর্জেন্টিনার এই ফরোয়ার্ডের ফ্রি কিকে পা ছুঁইয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন জেরার্দ পিকে। ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছিল পিএসভি আইন্দহোভেন। তবে শেষ পর্যন্ত দারুণ জয়ে গ্রুপ সেরা হয় ২০১৫ সালের চ্যাম্পিয়নরা।

পিএসভির মাঠে বুধবার রাতে ২-১ গোলে জেতে বার্সেলোনা। পাঁচ ম্যাচে চার জয় ও এক ড্রয়ে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি; গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেরা ষোলোয় উঠেছে এরনেস্তো ভালভেরদের দল। গত সেপ্টেম্বরে কাম্প নউয়ে প্রথম লেগের ম্যাচে মেসির হ্যাটট্রিকে ৪-০ গোলে জিতেছিল কাতালান ক্লাবটি।

ক্রিস্তিয়ান এরিকসেনের গোলে ইন্টার মিলানকে ১-০ ব্যবধানে হারানো টটেনহ্যাম হটস্পার ৭ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। সমান পয়েন্ট নিয়ে মুখোমুখি লড়াইয়ে পিছিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে ইন্টার মিলান। ১ পয়েন্ট নিয়ে তলানিতে আইন্দহোভেন।

গোলশূন্য প্রথমার্ধে বলের নিয়ন্ত্রণে বার্সেলোনা এগিয়ে থাকলেও আক্রমণে ধার বেশি ছিল আইন্দহোভেনের। কিন্তু বারবার পোস্টের বাধায় গোল বঞ্চিত হয় তারা।

ম্যাচের চতুর্থ মিনিটে গাস্তন পেরেইরোর প্রচেষ্টা আটকে বার্সেলোনার ত্রাতা গোলরক্ষক মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেন। ষোড়শ মিনিটে ইভান রাকিতিচের ভুলে বল পেয়ে যাওয়া উরুগুয়ের এই মিডফিল্ডারের শট পোস্টে লেগে ফিরলে বেঁচে যায় বার্সেলোনা।

৩৫তম মিনিটে মেসির বাড়নো বলে কৌতিনিয়োর লক্ষ্যভ্রষ্ট শট হতাশ করে বার্সেলোনা সমর্থকদের। দুই মিনিট পর আর্তুরো ভিদালের ব্যর্থতায় কাতালুনিয়ার দলটির হতাশা আরও বাড়ে। প্রথম শট ফিরে আসার পর চিলির এই মিডফিল্ডারের ফিরতি শট গোলমুখ থেকে ফেরান হেনড্রিক্স।

৪৫তম মিনিটে ভাগ্যের ফেরে আবারও গোলবঞ্চিত হয় আইন্দহোভেন। এবার সতীর্থের ফ্রি কিকে ডি ইয়ংয়ের হেড ক্রস বারে লেগে ফেরে।

৬১তম মিনিটের সুযোগ কাজে লাগিয়ে বার্সেলোনাকে এগিয়ে নেন মেসি। উসমান দেম্বেলের সঙ্গে একবার বল দেওয়া-নেওয়া করে বাঁ পায়ের দারুণ শটে কাছের পোস্ট দিয়ে জাল খুঁজে নেন আর্জেন্টিনার এই ফরোয়ার্ড।

পিকের দারুণ গোলে ৭০তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে নেয় বার্সেলোনা। মেসির ফ্রি কিকে স্পেনের এই ডিফেন্ডার পা ছোঁয়ালে বল গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে জালে জড়ায়।

৮২তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে সতীর্থের বাড়ানো ক্রসে নেদারল্যান্ডসের ফরোয়ার্ড ডি ইয়ং হেডে টের স্টেগেনকে পরাস্ত করলে ম্যাচে ফেরে আইন্দহোভেন। তবে দ্বিতীয় গোলের দেখা আর পায়নি তারা।

‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে মোনাকোকে ২-০ গোলে হারিয়ে পাঁচ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে নকআউট পর্বে উঠেছে আতলেতিকো মাদ্রিদ। ক্লাব ব্রুজের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করা বরুসিয়া ডর্টমুন্ড ১০ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থেকে নিশ্চিত করেছে সেরা ষোলো। ছিটকে যাওয়া মোনাকোর পয়েন্ট ৫; ব্রুজের পয়েন্ট ১।

‘সি’ গ্রুপে সার্বিয়ার ক্লাব রেড স্টার বেলগ্রেডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে পাঁচ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে নাপোলি।

আরেক ম্যাচে লিভারপুলকে ২-১ গোলে হারানো পিএসজি ৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠেছে। ৬ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে লিভারপুল।

৪ পয়েন্ট পাওয়া বেলগ্রেডের নকআউট পর্বে ওঠার আশা শেষ হয়ে গেছে।

‘ডি’ গ্রুপে জার্মান ক্লাব শালকেকে ৩-১ গোলে হারিয়ে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ সেরা হয়েছে পর্তুগালের ক্লাব পোর্তো। ৫ পয়েন্ট কম নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে শালকে।

আরেক ম্যাচে তুরস্কের ক্লাব গালাতাসারাইকে ২-০ গোলে হারিয়েছে রাশিয়ার লোকোমোতিভ মস্কো। অবশ্য দুটি ক্লাবেরই নকআউট পর্বের আশা শেষ হয়ে গেছে।