সন্তানকে উৎসাহ দেওয়ার উপায়

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ
পরিবেশ ও পরিবার থেকে শিশুরা শেখে। তাই সুন্দর মানসিকতার জন্য ছোটবেলা থেকেই শিশুকে সুস্থ পরিবেশ দেওয়ার চেষ্টা করা উচিত।

শিশুদের ভালো কাজের প্রশংসা করলে তারা সুন্দর মানসিকতায় বেড়ে ওঠে।

ভালো কাজের জন্য কীভাবে অনুপ্রেরণা যোগাতে হয় সেই বিষয়ে মানসিক স্বাস্থ্য-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে কয়েকটি পন্থা এখানে দেওয়া হল।

* সন্তানের ভালো কাজের জন্য প্রশংসা করুন।

* শিশুদের খেলার জন্য ‘বিল্ডিং ব্লক’ উপহার দিন। এতে তাদের গঠনশীলতা বৃদ্ধি পাবে। অভিভাবক হিসেবে নিজেও শিশুর সঙ্গে ‘বিল্ডিং ব্লক’ দিয়ে কাজ করুন।

* মাঝেমধ্য শিশুকে চ্যালেঞ্জয়ের সঙ্গে মোকাবিলা করতে দিন।

* পরিস্থিতির সঙ্গে শিশুর মানিয়ে নেওয়ার জ্ঞানীয় দক্ষতা যাচাই করুন।

* কঠিন কোনো কাজ করলে শিশুর প্রশংসা করুন। এতে সে বুঝতে পারবে, তারও প্রশংসা করা হয়।

* কিছু ক্ষেত্রে তাকে নিজে থেকেই সমাধান বের করতে দিন। এভাবে সে আপনাকে ছাড়াই সমস্যা সমাধান করা শিখবে।

* মাঝেমধ্য তাকে ‘একঘয়ে’ হতে দিন। একাকিত্ব ও এক ঘেয়ামিভাব তাকে সময়ের ব্যবহার ও বিশ্রামের সময় বের করে নিতে সাহায্য করবে।

* প্রতিদিনকার নিয়ম মেনে চলা শিশুর জন্য ভালো উপায়।

* শিশুর জন্য নাচ ও গান শেখার ব্যবস্থা করুন। এটা তাদের মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য খুব ভালো।

* তাদের প্রতিদিনের জটিলতা বা সমস্যা সহভাগিতা করতে উৎসাহ দিন।

* আপনার নিজের সমস্যাও সন্তানের সঙ্গে বিনিময় করুন।

* একসঙ্গে সমস্যার মোকাবিলা করার চেষ্টা করুন। এতে সমস্যার মুখোমুখি হওয়া সহজ হবে।

* জড়িয়ে ধরা ও সমসবেদনা দান করার শিক্ষা দিন।

* প্রতিদিনকার কাজ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করুন। এটা তাদের কাজের সঙ্গে আরও জড়াতে এবং সময়ের সঠিক ব্যবহার করার শিক্ষা দেবে।

* পরিবারের নিয়ম ও নীতি সম্পর্কে জানান। এটা তাদের মূল্যবোধের শিক্ষা দেবে।

* রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে টিভি দেখা থেকে বিরত থাকুন। এই খারাপ অভ্যাস থাকে দূরে থাকলে রাতে ঘুম ভালো হবে।

* তাদের প্রতি ভালোবাসার কথা জানান। ভালোবাসার চেয়ে ভালো কোনো কথা আর হয় না।

* পরীক্ষা খারাপ হতেই পারে, এরকম শিক্ষা দিন। এটা তাদের প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশে টিকে থাকার শিক্ষা দেবে।

* তাদের ধ্যান করার শিক্ষা দিন যা মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করবে।

* বই পড়ার প্রতি উৎসাহ দিন। এটা তাদের ভালো সময় কাটাতে এবং গ্যাজেট ও টিভি থেকে দূরে রাখতে সাহায্য করবে, পাশাপাশি জ্ঞান বাড়াবে।

* সবসময় তাদের কাজের প্রশংসা না দিয়ে মাঝেমধ্যে সুন্দরভাবে ভুলগুলো ধরিয়ে দিন। এতে তারা ভুল ও সঠিক বিষয়ের মধ্যে ফারাক বুঝতে পারবে।