গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ এড়াতে করণীয়

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ
আজকাল প্রায়ই গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে হতাহতের ঘটনা ঘটছে। অনেকসময় এটা গ্যাস পাইপে লিকেজের কারণে হয়। কখনো আবার অসাবধানতার কারণে হয়।

অনেকেই আছেন রান্না শেষে সরাসরি সিলিন্ডারের নব বন্ধ করেন কিন্তু গ্যাস বার্নারের নব বন্ধ করতে ভুলে যান বা করেন না। এতে গ্যাস ও সিলিন্ডার তাৎক্ষনিক ভাবে বন্ধ হয়ে যায় ঠিকই, কিন্তু বিপদের আশঙ্কা থেকেই যায়। সরাসরি সিলিন্ডারের নব বন্ধ করাতে গ্যাস বেরোনোর পথ হয়তো বন্ধ হয় কিন্তু বার্নারের ভিতরের গ্যাস হু হু করে বের হতে থাকে। খবর আনন্দবাজারের

আবার কেউ কেউ আছেন বার্নারের নব বন্ধ করেন কিন্তু সিলিন্ডারের না। এটা থেকেও দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

রান্নার গ্যাস বাতাসের চেয়ে ভারি। ফলে গ্যাস লিক করলেও তা মেঝে ও বার্নারের মুখের কাছাকাছি ঘোরাফেরা করে। এ কারণে এই সময় লাইটার কিংবা ম্যাচের কাঠি দিয়ে গ্যাস জ্বালাতে গেলে সঙ্গে সঙ্গে আগুন লেগে যাওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। এ কারণে রান্না শেষ হবার পর নিয়ম মেনে প্রথমে গ্যাস বার্নারের নব বন্ধ করুন। পরে করুন সিলিন্ডারের ।

গ্যাস সিলিন্ডার থেকে দুর্ঘটনা এড়াতে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখা জরুরি। যেমন-

১. গ্যাসের নব ঠিকমতো বন্ধ করা হয়েছে কিনা তা দেখে রান্নাঘর থেকে বের হোন।

২. গ্যাস লিলিন্ডারের পাইপে কোনও ধরনের ছিদ্র আছে কিনা সেটাও নিয়মিত পরীক্ষা করুন।

৩. অনেকে গ্যাস ব্যবহারের পর লাইটার বা ম্যাচটি চুলার উপরেই রেখে দিন। এটা মোটেও উচিত নয়। চুলার থেকে নিরাপদ দুরত্বে রাখা উচিত ম্যাচ বা লাইটার।

৪. রান্নাঘরে ঢুকে গ্যাসের কোনও গন্ধ পেলে তাড়াতাড়ি সেখান থেকে বের হয়ে আসুন।ওই অবস্থায় কোনও সুইচ বোর্ড বা বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম চালু করবেন না। গ্যাসের লাইনের কাউকে খবর দিন।

৫. গ্যাস বন্ধ করে বের হওয়ার আগে সিলিন্ডারের পাইপ যেন কোনও ভাবে গরম বার্নারের গায়ে লেগে না থাকে সেটা লক্ষ্য করুন।

৬. গ্যাসের পাইপ কখনও সাবান দিয়ে পরিষ্কার করবেন না।পাইপ পরিষ্কার করতে শুকনো কাপড় ব্যবহার করুন।খুব নোংরা হলে হালকা করে পানিতে ভিজিয়ে কাপড়টা ভালভাবে নিংড়ে সেই কাপড় ব্যবহার করুন। সাবানের ফেনা বা পানি কোনও ভাবে গ্যাসের সঙ্গে মিশে গেলে মারাত্মক বিপদ ঘটতে পারে।