বৈশাখী ভাতা ও ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট ঘোষণা দিলেন প্রধানমন্ত্রী

শিক্ষা ডেস্কঃ
বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের জন্য বৈশাখী ভাতা ও ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) গণভবনে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অধীনে ৯টি ট্রাস্টের মধ্যে ১০০ কোটি টাকার চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ ঘোষণা দেন। সভায় উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো: সোহরাব হোসাইন ও অবসর সুবিধাবোর্ডের সদস্য-সচিব অধ্যক্ষ শরীফ আহমদ সাদীসহ অন্যরা।

এর ফলে এমপিওভুক্ত প্রায় পাঁচ লাখ শিক্ষক-কর্মচারী প্রতিবছর সরকারি শিক্ষকদের মতো বৈশাখী ভাতা ও পাঁচ শতাংশ প্রবৃদ্ধি পাবেন।

গণভবনে সভাশেষে মো: সোহরাব হোসাইন দৈনিক শিক্ষাকে বলেন, ‘এইমাত্র মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বেসরকারি শিক্ষকদের মূল বেতনের ২০ শতাংশ বৈশাখী ভাতা ও ৫ শতাংশ বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। বেসরকারি শিক্ষাখাতে এক বিপ্লব ঘটে গেল।’

বৈশাখী ভাতা বকেয়া দেয়া হবে কি-না, দৈনিক শিক্ষার এমন প্রশ্নের জবাবে সোহরাব হোসাইন বলেন, ‘আগামী বৈশাখ থেকে শিক্ষক-কর্মচারীরা বৈশাখী ভাতা পাবেন। এ বাবদ একবছরে ১৭৭ কোটি ২৭ লাখ ৪৯ হাজার টাকা ব্যয় হবে। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে এ টাকা বরাদ্দ রেখেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এখন অর্থ মন্ত্রণালয় অর্থছাড় দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করবে।’

তিনি বলেন, পাঁচ শতাংশ বার্ষিক প্রবৃদ্ধির জন্য বছরে ব্যয় হবে ৫৩১ কোটি ৮২ লাখ টাকা। অর্থ মন্ত্রণালয় এ টাকা বরাদ্দ রেখেছে।

শরীফ আহমদ সাদী দৈনিক শিক্ষাকে বলেন, ‘জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনার প্রতি ৫ লাখ বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারী আজীবন কৃতজ্ঞ থাকবেন। প্রধানমন্ত্রীকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা। তিনি আজ আমাদের গণভবনে ডেকে বৈশাখী ভাতা, ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট ও অবসর-কল্যাণের ফান্ডে অর্থ বরাদ্দসহ একগুচ্ছ সুসংবাদ দিয়েছেন। এই সুসংবাদের কথা গত এপ্রিলেই আমাদের জানানো হয়েছিল এবং শিক্ষাবিষয়ক দেশের একমাত্র জাতীয় পত্রিকা দৈনিক শিক্ষাডটকম’র মাধ্যমে তা দেশের সব শিক্ষক-কর্মচারী জানতে পেরেছিলেন। শিক্ষকরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন এই দিনটির জন্য। আজ সেই শুভক্ষণ।’

বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের প্রাণের দাবি মেনে নেয়ায় বাংলাদেশ অধ্যক্ষ পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ মাজহারুল হান্নান প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো: শাহজাহান আলম সাজু দৈনিক শিক্ষাকে বলেন, গণভবন থেকে বেরিয়ে শিক্ষকরা আনন্দ মিছিল করেছেন। রোববার সারাদেশে আননদ মিছিল করবেন শিক্ষকরা।

বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. কাওছার আলী ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবু জামিল মো. সেলিম প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। এছাড়াও অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বাশিস) সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম রনি, বাংলাদেশ শিক্ষক ইউনিয়নের সভাপতি মো. আবুল বাশার হাওলাদার, বাংলাদেশ মাদরাসা জেনারেল টিচার্স এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মো. হারুন অর রশিদ।

কোনো গোষ্ঠী বা সংগঠনের দাবি নয়, নিজে থেকেই সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বৈশাখী ভাতা চালু করেন শেখ হাসিনা। ৮ম জাতীয় বেতনস্কেল চালু হওয়া থেকে প্রতিবছর বৈশাখী ভাতা পেয়ে আসছেন তারা। একইভাবে ৫ শতাংশ বার্ষিক প্রবৃদ্ধিও পেয়ে আসছেন সরকারি শিক্ষকসহ সব সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। কিন্তু অনুদানভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকদের দাবির প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী এই ঘোষণা দিলেন।

সূত্রঃ দৈনিকশিক্ষা