‘প্রথম টেস্ট আরও আত্মবিশ্বাসী করেছে’

ক্রীড়া ডেস্কঃ
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান ছিলেন আরিফুল ইসলাম। দুই ইনিংস মিলিয়ে তিনিই দলের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করেছেন। অথচ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অভিষেক টেস্ট খেলতে নামেন তিনি। শেষের দিকে ব্যাট করে অবশ্য খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। কিন্তু ওয়ানডে-টি২০ সিরিজের দলে বেশি সময় বসে থাকা আরিফুলের টেস্ট দলে অন্তভূক্তি ছিল কিছুটা অবাক করার মতো। আরিফুল ইসলাম মনে করেন, দলে ডাক পাওয়া ও সুযোগ পাওয়ার পেছনে ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির ভূমিকা আছে।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিলেট টেস্টে খুব বাজেভাবে হেরেছে বাংলাদেশ দল। দলের হয়ে তাইজুল ইসলাম টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো ১১ উইকেট নেন। আর ব্যাটে একটু ভরসা দেখান আরিফুল। নাম বলার মতো আশাও দেখাতে পারেনি আর কেউ। ডানহাতি এই অলরাউন্ডার ঢাকা টেস্টে আরও ভালো করতে আত্মবিশ্বাসী। এছাড়া সিরিজ বাঁচানোর ম্যাচে দল ভালো করবে বলেও মনে করেন আরিফুল হক।

ঢাকা টেস্টে দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে নামার অপেক্ষায় থাকা আরিফুল বলেন, ‘প্রথম টেস্ট আমাকে বেশ আত্মবিশ্বাস দিয়েছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ের কোন বলার সহজে আপনাকে শট খেলতে দেবে না। আর তাই আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে। আমার একটা স্বপ্ন ছিল টেস্ট ম্যাচ খেলার। এখন লক্ষ্য সব ফরম্যাটে খেলার সুযোগ করে নেওয়া। অভিষেক ম্যাচ খেলার কোন চাপ ছিল না আমার। কারণ আমি ড্রেসিং রুমের এই অভিজ্ঞতা অনেকদিন ধরেই নিচ্ছি। দলের সিনিয়র খেলোয়াড়রা তাদের আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করলে খেলা সহজ হয়ে যায়।’

দল নিয়ে আরিফুলের যুক্তি পেছনের খারাপ সময়ের কথা মনে রাখার কোন মানে হয়না। সামনে তাকানোর কথা জানিয়ে এই অলরাউন্ডার বলেন, ‘প্রথম টেস্টটি নিয়ে ভাবলে আমরা মানসিকভাবে পিছিয়ে যাবো। আমার দল হয়ে খেলতে পারলে তাদের বিপক্ষে জেতা কঠিন হবে না।’

অবশ্য প্রথম টেস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আরিফুলকে দলে নেওয়া অলরাউন্ডার হিসেবে। পেস বোলিংয়ে আবু জায়েদকে সাহায্য করা। কিন্তু বল হাতে তিনি তেমন কিছু করতে পারেননি। আরিফুল বল করার সুযোগ পেয়েছেন খুব কম। কিন্তু সুযোগ পেলে তিনিও বল হাতে অবদান রাখত চান, ‘ওখানকার উইকেট আমার বল করার জন্য সহায়ক ছিল না। আমাকে ঘরোয়া ক্রিকেটে আরও ভালো বোলিং করতে হবে। বিপিএল বা অন্য টুর্নামেন্টে যদি বল হাতে ভালো করতে পারি তবে জাতীয় দলে বল করার সুযোগ পাবো।’

এছাড়া সিলেট টেস্টে বাংলাদেশ দলে ছিলেন না মুস্তাফিজুর রহমান। তবে আগামী ১১ তারিখ থেকে শুরু হওয়া ঢাকা টেস্টের দলে দেখা যেতে পারে তাকে। তিনি ফিরলে বাংলাদেশ দলের শক্তি আরও বেড়ে যাবে। তবে ইনজুরি শঙ্কায় থাকা ফিজ খেলবেন কিনা তা এখনো নিশ্চিত করা হয়নি দলের পক্ষ থেকে। আরিফুল বলেন, ‘আমাদের দলের সেরা বোলার মুস্তাফিজ ছিলেন না আগের ম্যাচে। সে ফিরলে আমরা জয়ের ধারায় ফিরে আসবো।’ মুস্তাফিজ খেললে বাংলাদেশ দুই পেসার ও দুই স্পিনার নিয়ে মাঠে নামতে পারে। বাদ পড়তে পারেন আগের ম্যাচ অভিষেক হওয়া বাঁ-হাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপু।