নাইক্ষ্যংছড়িতে বৌদ্ধ ভিক্ষু হত্যার ঘটনায় মামলা : সন্দেহভাজন আটক ৩

হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী :
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে বৌদ্ধ ভিক্ষুকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা করেছেন তাঁর ছেলে। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার রাতে তাঁদেরকে আটক করা হয়। তাঁরা হলেন আবদুর রহিম (২৬), জিয়াউল হক (২৫) ও সামং চাক (৩২)।

পুলিশের ভাষ্য, সন্দেহজনক গতিবিধির কারণে ওই তিনজনকে আটক করা হয়েছে। তবে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাঁদের কাছ থেকে পুলিশ কোন ধরনের তথ্য উদ্ধার করতে পারেনি।

এ ব্যাপারে মুঠোফোন রিসিভ না করায় নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আবুল খায়ের এর বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) কাজী সোলতান উদ্দিন আহসন জানিয়েছেন, বৌদ্ধ ভিক্ষুর ছেলে অং চা থোয়াই রোববার সকালে হত্যা মামলা করেছেন (যার নং-৬ তাং-১৫/০৫/১৬)। এতে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামী করা হয়েছে।

শনিবার সকালে উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের দুর্গম উপর চাকপাড়া গ্রামের ভদন্ত ধর্মবংশ ভিক্ষুর (৭০) লাশ পাওয়া যায়। ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলা ও ঘাড়ে কুপিয়ে তাঁকে হত্যা করা হয়। ভিক্ষু হওয়ার আগে ধর্মবংশ ভিক্ষুর নাম ছিল মং শৈ উ চাক।

এদিকে ভিক্ষুকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনার পর এলাকার মানুষের মধ্যে এখন আতঙ্ক কাজ করছে। স্থানীয় চাক সম্প্রদায়ের নেতা চৌ চিন চাক জানিয়েছেন, এ ধরনের একটি ঘটনায় তারা সবাই অবাক, ধারণাও করতে পারেন না এমন একটা ঘটনা তাদের এলাকায় ঘটেছে। তিনি বলেন, এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার পর এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক কাজ করছে।

বান্দরবান জেলা পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, দুর্গম এলাকায় কেন এই হত্যাকান্ড ঘটেছে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।