রোহিঙ্গাদের দেখতে এলেন বিশ্ব ব্যাংক প্রেসিডেন্ট

অনলাইন ডেস্কঃ
রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি দেখতে, দেশান্তরী এই মানুষগুলোর দুর্দশার কথা তাদের মুখ থেকে শুনতে দুই দিনের সফরে বাংলাদেশে এসেছেন বিশ্ব ব্যাংক প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম।

এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে শনিবার সন্ধ্যায় বিশ্ব ব্যাংক প্রধান ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন বলে বিশ্ব ব্যাংকের ঢাকা অফিসের মুখপাত্র মেহরিন আহমেদ মাহবুব বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন।

জিম ইয়ং কিম বিমানবন্দর থেকে র‌্যাডিসন হোটেলে উঠেছেন বলে জানান মেহরিন।

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসও মধ্যরাতে ঢাকায় আসছেন।

তিনিও রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি দেখতে, তাদের দুর্দশার কথা শুনতে কক্সবাজারে শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করবেন।

মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্য, শিক্ষা, পয়ঃনিষ্কাশন, নিরাপদ পানি ও সামাজিক সুরক্ষার ব্যবস্থা করতে বাংলাদেশকে ৪৮ কোটি ডলার অনুদান দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক।

শুক্রবার বিশ্ব ব্যাংকের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিশ্ব ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ এই সহায়তার প্রথম কিস্তিতে পাঁচ কোটি ডলার ছাড়ের অনুমোদন দিয়েছে, যা বাংলাদেশে চলমান বিভিন্ন স্বাস্থ্যসেবা প্রকল্পের মাধ্যমে ব্যয় করা হবে।

কানাডা সরকারের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহায়তা বিভাগের সঙ্গে যৌথভাবে রোহিঙ্গাদের জন্য এই সাহায্য দিচ্ছে বিশ্ব ব্যাংকের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহায়তা সংস্থা-আইডিএ।

কক্সবাজারে আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা রোহিঙ্গা মা ও শিশুর স্বাস্থ্য সেবা, কিশোর বয়সীদের স্বাস্থ্যসেবা ও পুষ্টি, জন্ম নিয়ন্ত্রণ ও প্রজনন স্বাস্থ্যসেবায় এই অর্থ ব্যয় করা হবে বলে রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

গত বছর অগাস্টে মিয়ানমারের রাখাইনে নতুন করে সেনাবাহিনীর দমন অভিযান শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এর ফলে সাম্প্রতিক সময়ে এ অঞ্চলের সবচেয়ে বড় শরণার্থী সমস্যার মোকাবেলা করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে।

বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম এক বিবৃতিতে বলেন, “রোহিঙ্গাদের দুর্দশা আমাদের নাড়িয়ে দিয়েছে। তারা স্বেচ্ছায়, নিরাপদে, মর্যাদার সঙ্গে নিজেদের ঘরে ফিরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত তাদের সহায়তা দিয়ে যেতে আমরা প্রস্তুত আছি।”

সেই সঙ্গে বাংলাদেশের মানুষের জন্যও সহযোগিতা অব্যাহত রাখার কথা বলেছেন তিনি।

বিশ্ব ব্যাংক প্রেসিডেন্ট ও জাতিসংঘ মহাসচিব সোমবার কক্সবাজারে গিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘুরে দেখবেন এবং সেখানে ত্রাণ বিতরণের দায়িত্বে থাকা আন্তর্জাতিক সংস্থার কর্মীদের সঙ্গেও কথা বলবেন। এই সঙ্কট নিরসনে আর কী কী করা যায়, সে বিষয়েও আলোচনা করবেন তারা।

এই সফরে ঢাকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গেও বৈঠক করবেন জাতিসংঘ মহাসচিব ও বিশ্ব ব্যাংক প্রেসিডেন্ট।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাই কমিশনার ফিলিপো গ্র্যান্ডি এবং জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) নির্বাহী পরিচালক নাটালিয়া কানেমও এই সফরে তাদের সঙ্গে থাকছেন বলে জাতিসংঘের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

সূত্রঃ বিডিনিউজ