রোমাঞ্চকর ম্যাচে সমতায় স্পেন-পর্তুগাল

ক্রীড়া ডেস্কঃ
ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর দুই গোলের জবাবে দুই গোল করলেন দিয়েগো কস্তাও। স্পেনকে প্রথমবারের মতো এগিয়ে নিলেন নাচো ফের্নান্দেস। কিন্তু শেষে আবার রোনালদো জাদু। দুর্দান্ত ফ্রি-কিকে সমতা ফেরালেন পর্তুগিজ অধিনায়ক।

সোচিতে রাশিয়া বিশ্বকাপের ‘বি’ গ্রুপে আইবেরিয়ান উপদ্বীপের দুই দেশের রোমাঞ্চকর লড়াইটি শেষ হয়েছে ৩-৩ গোলের সমতায়।

বিশ্বকাপে নিজের প্রথম হ্যাটট্রিক পেলেন রোনালদো। তার জ্বলে উঠার দিনে স্পেনও দেখাল নতুন কোচ ফের্নান্দো ইয়েররোর অধীনে নিজেদের সেরাটা দিতে তারা প্রস্তুত।

ফিশৎ স্টেডিয়ামে শুক্রবার চতুর্থ মিনিটেই এগিয়ে যায় পর্তুগাল। এই ম্যাচের আগে স্পেনের বিপক্ষে ৩৪০ মিনিট খেলেও জালের দেখা না পাওয়া রোনালদোর অপেক্ষার অবসান হয় পেনাল্টি থেকে গোলে। রিয়াল মাদ্রিদ সতীর্থ নাচো তাকে ডি-বক্সে ফেলে দিলে স্পটকিকের বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি।

ডান দিক দিয়ে জোরালো শটে বল ঠিকানায় পাঠান রোনালদো। ইতিহাসের মাত্র চতুর্থ ফুটবলার হিসেবে গড়েন বিশ্বকাপের চার আসরে গোল করার কীর্তি।

২৪তম মিনিটে প্রতি আক্রমণ থেকে চমৎকার গোলে দলকে সমতায় ফেরান কস্তা। বল পেয়ে এগিয়ে যান ব্রাজিলে জন্ম নেওয়া স্পেনের এই ফরোয়ার্ড। পায়ের কারিকুরিতে দুই ডিফেন্ডারের চ্যালেঞ্জ এড়িয়ে ঠাণ্ডা মাথায় গড়ানো শটে বল পাঠান জালে।

ভিএআর প্রযুক্তির সহায়তা নিয়েছিলেন রেফারি বল রিসিভ করার আগে পেপেকে কস্তা ফাউল করেছিলেন কিনা যাচাই করতে। তবে গোল বাতিল হয়নি।

২৭তম মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে ইসকোর শট ক্রসবারের নিচের দিকে লেগে গোললাইনে পড়ে মাঠে ফিরে। খানিক পর একটুর জন্য লক্ষ্যে থাকেনি আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার শট।

খেলার ধারার বিপরীতে ৪৪তম মিনিটে পর্তুগালকে আবার এগিয়ে নেন রোনালদো। পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলারের দ্বিতীয় গোলটি যেন গোলরক্ষক দাভিদ দে হেয়ার উপহার। ডি-বক্সের বাইরে থেকে নিচু শটে বল তার গ্লাভস ফস্কে জালে জড়ায়।

স্পেনকে ৫৪তম মিনিটে আবার সমতায় ফেরান কস্তা। তার এই গোলে অবশ্য বড় অবদান সের্হিও বুসকেতসের। দাভিদ সিলভার ক্রসে বাইলাইন থেকে হেডে বার্সেলোনা মিডফিল্ডার খুঁজে নেন কস্তাকে। গোলের অমন সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেননি আতলেতিকো মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড।

ম্যাচের শুরুতেই রোনালদোকে ডি-বক্সে ফাউল করে যেন খলনায়ক হয়ে গেছিলেন নাচো। সেই ভুল ৫৮তম মিনিটে শোধ করে দলকে এগিয়ে নেন এই ডিফেন্ডার। ডি-বক্সের বাইরে থেকে দুর্দান্ত কোনাকুনি শট পোস্টের ভেতর দিকে লেগে জড়ায় জালে।

তবে বাকি ছিল রোনালদোর জাদু। ৮৭তম মিনিটে চমৎকার এক ফ্রি-কিকে বল ক্রসবার ঘেঁষে পৌঁছায় ঠিকানায়। নিখুঁত শট ফেরানোর চেষ্টাই করতে পারেননি দে হেয়া।

ফুটবলের বড় কোনো আসরে এ নিয়ে পঞ্চমবার মুখোমুখি হল স্পেন-পর্তুগাল। আগের চার ম্যাচ মিলিয়ে গোল হয়েছিল ৪টি। এবার এক ম্যাচেই হল ছয়টি!

বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচ যেন কঠিন পরীক্ষা স্পেনের জন্য। এ নিয়ে সবশেষ ১৩ ম্যাচের ১১টিতেই জয়শূন্য থাকল দলটি।

‘বি’ গ্রুপের প্রথম ম্যাচে মরক্কোকে ১-০ গোলে হারায় ইরান।

আগামী বুধবার নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে মরক্কোর বিপক্ষে খেলবে পর্তুগাল। একই দিন ইরানের মুখোমুখি হবে স্পেন।