রামুতে অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলে গ্রামীণ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

আমাদের রামু প্রতিবেদকঃ
রামুতে টানা কয়েক দিনের বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের পানিতে ডুবে আছে উপজেলার একাধিক ইউনিয়নের গ্রামীণ যাতায়াতের পথ। তলিয়ে গেছে বিভিন্ন গ্রামীণ সড়ক। এতে করে চরম দূর্ভোগে পড়েছে উপজেলার হাজারো জনসাধারণ। বিদ্যুৎ বিহীন হয়ে পড়েছে গর্জনিয়া বাজার, কচ্ছপিয়া, কাউয়ারখোপসহ কয়েকটি ইউনিয়নের সর্বসাধারণ।

বিশেষ করে বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলে উপজেলার নিন্মাঞ্চল গর্জনিয়া ইউনিয়নের বড় বিল, পূর্ব জুমছড়ি, টাইম বাজার, পশ্চিম জুমছড়ি, গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের আশপাশের গ্রামের বসত বাড়িতে সকাল হতে পানি উঠতে শুরু করেছে। তবে সর্বশেষ পাওয়া তথ্যমতে হতাহতের সংবাদ পাওয়া যায়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১২ মঙ্গলবার দিবাগত রাত হতে অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলে রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নে কয়েকটি গ্রাম, কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের বুমাংখিল, গর্জনিয়া বাজার হতে চাকমার কাটা গুরুর বাজার পর্যন্ত সড়কসহ কযেকটি গ্রাম, কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের চর পাড়া, পশ্চিম পাড়া, ফরেষ্ট অফিস এলাকা সমূহ, দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের কাইম্যারঘোনা , উমখালী গ্রামে পানি উঠে যাতাযত করতে পারছেনা জনসাধারণ। এছাড়া রামু সড়র ইউনিয়নের হাইটুপি সড়কে বাকখাঁলী নদীর পানি বিপদ সীমার প্রবাহিত হওয়ায় হাইটুপি সড়কটি ভাঙ্গার আশংকা করছেন স্থানীয়রা।

গর্জনিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম জুমছড়ি গ্রামের বাসিন্দা মুহিদুল আলম মুফিজ জানান, মঙ্গলবার দিবাগত রাত হতে গর্জনিয়ার ইউনিয়নের টাইম বাজার হতে সিকদার পাড়া, পূর্ব জুমছড়ি, বড় বিল এবং শাহ সুজাঁ সড়কে পানি বিপদ সীমার উপরে বেড়ে যাওয়ায় সকাল হতে কোন জনসাধারণের চলাচল করে পারছেনা । এছাড়া ও গর্জনিয়া বাজারে সোমবার সন্ধ্যা হতে বিদ্যুৎ বিহীন অবস্থায় দিন যাপন করছে মানুষ। এদিকে এভাবে বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে বন্যার আশংকা করছেন বিশ্লেষকরা। অন্যদিকে প্রবল বৃষ্টির ফলে রামুতে থমকে পড়েছে ঈদের বাজার। বৃষ্টির ফলে বসত বাড়িতে পানি উঠায় ঈদ আনন্দ নিয়ে সংশয় জানিয়েছেন অনেকেই।