জঙ্গিবাদ একটি আন্তর্জাতিক চক্রান্ত- ইহুদি নাসারাদের সৃষ্টি

একেএম লিয়াকত আলীঃ
-প্রথমেই দেখি শান্তির ধর্ম ইসলাম জঙ্গিবাদ সম্পর্কে কি বলে-

“আল মুসলিমু মান সালিমাল মুসলিমূনা মিল্লিসা-নিহী ওয়াইয়াদিহী…”
– অর্থাৎ- ‘‘প্রকৃত মুসলিম সেই, যার জিভ ও হাত থেকে সকল মুসলিম নিরাপদ থাকে”। (সহীহ বুখারী- ১ম খণ্ড, ১১ পৃষ্ঠা )

ইসলাম যে প্রকৃতপক্ষে অমুসলিমদের প্রতি মহানুভবতা দেখাইতে বলেছেন -তা এই হাদিস থেকে স্পষ্ট বুঝা যায় –
রাসূলুল্লাহ্ (সা.) ইরশাদ করেছেন,
“মনে রেখ, যদি কোনো মুসলমান-
-কোনো অমুসলিম নাগরিকের ওপর নিপীড়ন চালায়,
-তার অধিকার খর্ব করে,
-তার কোনো বস্তু জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়
-তাহলে কিয়ামতের দিন আমি আল্লাহর আদালতে তার বিরুদ্ধে অমুসলিম নাগরিকের পক্ষে মামলা দায়ের করব”।
(আবু দাউদ শরিফ, ৯হাদিস নং- ৩০৫২)।

ISIS- Meaning –
Israel Secret Intelligent Service
১। সিরিয়া গৃহযুদ্ধে আমেরিকা ও ইসরাইল সমর্থন করছে বিদ্রোহিদের মানে ISIS/ISIL কে।
২। সিরিয়াতে ISIS/ISIL এর ভুমিকা আসাদ সরকারের বিরুদ্ধে – সবাই জানেন।
৩। আমেরিকা সিরিয়ার বিদ্রোহিদের তথা ISIS/ISIL কে জর্ডানে প্রশিক্ষন দিচ্ছে।
৪। ইসরাইল হাসপাতাল স্থাপন করে ISIS/ISIL যুদ্ধাহতদের সিরিয়ায় চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে।
৫। ইসরাইলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদ প্রধান প্রকাশ্যে বলেছিলেন – যে তারা সিরিয়াতে ISIS/ISIL এর ভূমিকাকে সমর্থন করে।
৬। আমেরিকার রিপাবলিকান দলের সিনেটর ও প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট পদ প্রার্থী জন ম্যাক কেইন ২০১৩ সালে একাধিক বার ISIS প্রধান আবু বকর আল বাগদাদীর সাথে মিটিং করেছিল।
৭। পররাষ্ট্র মন্ত্রী থাকা কালীন হিলারি ক্লিনটন ISIS এর নিকট অস্র বিক্রি করেছিল – যা গত নির্বাচনে আমেরিকাতে ব্যাপক সাড়া জাগায় এবং হিলারী ক্লিনটনের পরাজিত হওয়ার এইটাও একটা কারন বলে অনেকে মনে করেন।
৮। সারা বিশ্বে আক্রমণ হইল – বাংলাদেশও বাদ পড়ে নাই – কিন্তু অদ্যাবধি ISIS/ISIL ইসরাইলে একটাও আক্রমণ করে নাই বা করার চেষ্টাও করে নাই।
৯। অথচ ISIS নিজেদের মুসলমান দাবি করেও মদিনার মত পবিত্র স্থানেও আক্রমণ করলো।
১০। ISIS প্রধান আবু বক্কর আল বাগদাদী পিতা মাতা ইহুদি ছিলেন – তার আসল নাম Elliot Shimon.
১১। আমেরিকা তাকে একবার ইরাক থেকে গ্রেফতার করে চার বছরের বেশী আটক রেখে জঙ্গিবাদের উপর প্রশিক্ষণ দিয়া – ছেড়ে দেয়।
এই সংক্রান্তে সমস্ত তথ্য গোপন রাখে। বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্য মতে – আবু বকর আল বাগদাদী ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থা

Mosad Agent.
১২। আমেরিকা যদি মাটির তল থেকে সাদ্দাম হোসেন কে বের করতে পারে – তবে এত দিনেও বাগদাদীকে কেন আটক করতে পারছে না।

এর পরও কি আমরা বলবো ISIS/ISIL আমেরিকা, ব্রিটিশ আর ইসরাইলের সৃষ্টি না ?
তাদের জঙ্গিবাদী সন্ত্রাসী কাজের Beneficiary কারা ?
অবশ্যই ইসলাম নয়।

সুতরাং এখনই সময় আমাদের সন্তানদের বুঝানো-
ইহুদিরা Greater Israel গঠনের লক্ষ্য নিয়া মুসলমানদের মাথায় লবন রেখে বরই খাওয়ার চেষ্টা করছে।
-তাদের Brain Wash করে কাটা দিয়া কাটা তোলার চেষ্টা করে বিশ্ব মানবতার কাছে শান্তির ধর্ম ইসলামের ইমেজ নষ্ট করছে।
-যাতে পুরো বিশ্ব মুসলমানদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং মধ্যপ্রাচ্যে বৃহত্তর ইসরাইলী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা সহজ হয়।
– হিটলার যথার্থই বলেছিলেন যে তিনি ইচ্ছা করে কিছু ইহুদিদের বাচাঁইয়া রেখেছেন – যাতে পরবর্তী প্রজন্ম বুঝতে পারে তিনি কেন ২য় বিশ্বযুদ্ধে ইহুদি নিধন করেছেন ?

লেখকঃ একেএম লিয়াকত আলী

অফিসার ইনচার্জ, রামু থানা।