সোনাইছড়িতে ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে অবৈধভাবে পাহাড় কেটে পাথর উত্তোলন

সোয়েব সাঈদ:
নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নে সরকারি বনাঞ্চল ও ব্যক্তি মালিকানাধিন বাগান থেকে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করছে একটি প্রভাবশালী চক্র। সোনাইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বাহান মার্মা এ সিন্ডিকেটের মূল হোতা। পাথর উত্তোলনের ঘটনায় ওই চেয়ারম্যানের ছেলে মং নাইচউ সহ এলাকার আরো একাধিক ব্যক্তি জড়িত রয়েছে বলে জানা গেছে।

পাথর উত্তোলনকারিদের কবল থেকে রেহাই পাচ্ছিলো না সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ব্যক্তি মালিকানাধিন বাগানও। নাইক্ষ্যংছড়ি মহাজন ঘোনার মৃত মোহিনী রঞ্জন দাশের ছেলে ডা. কালিপদ দাশ জানিয়েছেন, ওই এলাকায় তার এবং স্ত্রী-কন্যার স্বত্ব দখলীয় জমি থেকে সম্প্রতি ইউপি চেয়ারম্যান বাহান মার্মা শ্রমিকদের দিয়ে পাথর উত্তোলন শুরু করে। বাগানের পাহারাদার পাথর উত্তোলন না করার অনুরোধ জানালেও তারা তা কর্ণপাত করেনি। এতে নিরুপায় হয়ে তিনি গত ২ মার্চ স্থানীয় সোনাইছড়ি পুলিশ ফাঁড়িতে লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পাথর উত্তোলনের সত্যতা পান। কিন্তু এ নিয়ে কোন আইনী ব্যবস্থা না নেয়ায় তিনি গত ৫ মার্চ কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরে লিখিত অভিযোগ দেন।

অভিযোগ পেয়ে পরদিন ৬ মার্চ কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সাইফুল আশ্রাব সোনাইছড়ি ইউনিয়নের মাছকুম নামক ঝিরি ও ডা. কালিপদ দাশ এর জমিতে সরেজমিন গিয়ে পাহাড় কেটে পাথর উত্তোলনের দৃশ্য দেখতে পান। এসময় তিনি শ্রমিকদের সাথে কথা বলেন। পাথর উত্তোলনের সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করেন। শ্রমিকরা পাথর উত্তোলনের কোন অনুমতি না থাকার কথা স্বীকার করেন। এসময় তিনি পাথর উত্তোলন না করার জন্য কর্মরত শ্রমিকদের নির্দেশ দেন।

ডা. কালিপদ দাশ জানান, মাটি খোদাই ও পাহাড় কেটে পাথর উত্তোলনের কারনে তার কষ্টে গড়া ফলজ-বনজ গাছের বাগানটি এখন হুমকীর মুখে পড়েছে। যে কোন সময় পাহাড়ধ্বস সহ পরিবেশের অপূরনীয় ক্ষতি হতে পারে। তাছাড়া পাথর উত্তোলন অবৈধ এবং সরকারি সম্পদ আত্মসাতের শামিল।

কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সাইফুল আশ্রাব সোনাইছড়িতে ডা. কালিপদ দাশ এর বাগান ও সংলগ্ন মাছকুম নামক ঝিরিতে পাথর উত্তোলনের সত্যতা পাওয়া গেছে। দীর্ঘ ঝিরি ও পাহাড় কেটে উত্তোলন করা বিপুল পরিমান পাথরের স্তুপ পাচারের জন্য মজুদ করা হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা বাহান মার্মা ও তার ছেলে মং নাইচউ সহ এলাকার আরো একাধিক ব্যক্তি পাথর উত্তোলনের এ পরিবেশ বিধ্বংসী কাজে জড়িত রয়েছে। এদের বিরুদ্ধে শীঘ্রই আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে সরেজমিন গিয়ে পাথর উত্তোলনে নিয়োজিত শ্রমিকদের মধ্যে উখিয়া উপজেলার হলুদিয়া ইউনিয়ন বড় বিল গ্রামের জমির হোছনের ছেলে মাহমুদুল হক (৫০), সোনাইছড়ি ইউনিয়নের চুল্লা পাড়ার মোজাফ্ফর প্রকাশ জাফর মাঝি, সোনাইছড়ি বৈদ্যপাড়ার মং ব্যুর ছেলে তংছা মার্মা (২৮), উখিয়া উপজেলার হলুদিয়া ইউনিয়নের পাতাবাড়ি গ্রামের শাহ আলমের ছেলে সিরাজ (৪৫) জানান, স্থানীয় চেয়ারম্যান বাহান মার্মার নির্দেশে দৈনিক মজুরীর ভিত্তিতে তারা কয়েক সপ্তাহ ধরে এখানে পাথর উত্তোলন করছেন। পাশাপাশি তারা পাথর পাচারের জন্য পাহাড় কেটে রাস্তাও তৈরী করে যাচ্ছেন।

এলাকাবাসী জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন সোনাইছড়ি ইউনিয়ন ও পাশর্^বর্তী এলাকার ঝিরি, ছড়া ও পাহাড় কেটে পাথর উত্তোলন করছে চেয়ারম্যান বাহান মার্মার সিন্ডিকেট। অবৈধভাবে তোলা এসব পাথর দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচ্ছে।

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম সরওয়ার কামাল জানান, উপজেলার কোথাও পাথর উত্তোলনের অনুমতি দেয়া হয়নি। কেবলমাত্র জেলা প্রশাসক অনুমতি দিতে পারেন। তিনি আরো জানান, পাথর নিয়ে কাউকে ব্যবসা করতে দেয়া হবে না। অবৈধভাবে পাথর আহরণ ও পাচারে জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে পাথর উত্তোলন ও পাচারের ঘটনায় অভিযুক্ত সোনাইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাহান মার্মা’র মুঠোফোনে (নং ০১৮২৪-৯৩০৯৫১) একাধিকবার কল করে সংযোগ বন্ধ পাওয়া গেছে। এছাড়া বাহান মার্মা’র ছেলে মং নাইচউ এর মুঠোফোনে (নং ০১৬২৮-৭০৮০৬৬) একাধিকবার কল করলেও তিনি কল ধরনেনি। ফলে তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

সোনাইছড়ি মৌজা হেডম্যান অং চিং থোয়ে জানান, ইউপি চেয়ারম্যান বাহান মার্মা ও তার ছেলের নেতৃত্বে দীর্ঘদিন বিভিন্ন ঝিরি ও পাহাড় কেটে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। এভাবে নির্বিচারে পাথর উত্তোলনের কারনে এলাকার পরিবেশ বিপর্যয়ের আশংকা করছেন তিনি।

জানা গেছে, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সোনাইছড়িসহ বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে অবৈধভবে পাহাড় কেটে ও মাটি খুঁড়ে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। প্রভাবশালীরা পাহাড়ি অঞ্চলের বনজসম্পদ ধ্বংস করে লাখ লাখ টাকার পাথর উত্তোলন করছে। এতে পাহাড়ের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে, বিপর্যয়ের মুখে পড়ছে পরিবেশ। অন্যদিকে সরকার লাখ লাখ টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট প্রশাসন এদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিয়েছে এমন প্রমান এলাকাবাসীর কাছে নেই।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সোনাইছড়ি ইউনিয়নের পাহাড়ি এলাকায় কতিপয় বাহান মার্মার নেতৃত্বে স্থানীয় লোকজন দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে ঝিরি-পাহাড় কেটে ও মাটি খুঁড়ে পাথর উত্তোলন করছে। দীর্ঘদিন এভাবে পাথর উত্তোলনের ফলে ঐসব পাহাড় ঝুঁকির মুখে পড়েছে। পাহাড় ধ্বসে ছড়া ও ঝিরিগুলো বন্ধ হওয়ার আশংকা রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পাহাড়ের আনাচে-কানাচে, গভীর জঙ্গলে টিলা খুঁড়ে অথবা পাহাড়ের উপত্যকায় সমতল মাটিতে গভীর গর্ত খুঁড়ে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। উত্তোলিত বড় পাথরগুলো সেখানে ভাঙা হচ্ছে এবং ছোটগুলো ট্রাক-পিকআপ করে বিভিন্ন জায়গায় পাচার করা হবে। পাথর উত্তোলনকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় স্থানীয় লোকজন কোনো ধরনের প্রতিবাদ করতে পারেন না।