চাকরি জাতীয়করণের দাবীতে বান্দরবানের সিএইচসিপিদের অবস্থান কর্মসূচী পালিত

মো: ইউছুপ মজুমদার:

চাকরি জাতীয়করনের দাবীতে অবস্থান কর্মসূচী পালন করেছে বান্দরবানের কমিউনিটি ক্লিনিকে কমর্রত কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি)রা। কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে শনিবার (২০ জানুয়ারী) স্ব স্ব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত এ অবস্থান কর্মসূচী পালন ও চাকরি জাতীয়করণের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন সিএইচসিপিরা।

অবস্থান কর্মসূচীকালীন সময়ে জেলার সকল কমিউনিটি ক্লিনিক সেবা বন্ধ ছিল। অবস্থান কর্মসূচি চলবে ২০ জানুয়ারি থেকে ২২ জানুয়ারি প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত। অবিলম্বে তাদের চাকরি জাতীয়করণ না করা হলে ২৪, ২৫ ও ২৬ জানুয়ারি কর্মবিরতি পালনের পর কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারিও দেন তারা।

এদিকে কর্মসূচী পালনের কারণে কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েছে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা। জানা যায়, আর্ন্তজাতিক স্বীকৃতি প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান কমিউনিটি ক্লিনিক হতে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করণে কাজ করছে। এতে গর্ভবতী মায়ের সেবা, শিশু স্বাস্থ্য, স্বাভাবিক প্রসব করানো, সাধারণ রোগের চিকিৎসা সেবাসহ রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে স্বাস্থ্য শিক্ষাও প্রদান করা হয়। এছাড়া দুর্গম এলাকায় মেডিকেল টিম হিসেবে বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় কাজ করে কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডাররা (সিএইচসিপি)। পাশাপাশি গর্ভবতী মহিলাদের ও শিশুদের অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন, ই-হেলথ সেবা দিচ্ছে তারা। কিন্তু এখনো চাকরি জাতীয়করণ না হওয়ায় তারা হতাশায় ভুগছেন।

কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার এসোসিয়েশনের লামা উপজেলা সভাপতি আবদুস সালাম জানান, ২০১১ সাল থেকে একই বেতনে কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডাররা (সিএইচসিপি) প্রকল্পের অধীনে কাজ করছে। সরকার ২০১৩ সালে তাদের চাকরি রাজস্বখাতে অর্ন্তভুক্ত করার উদ্যোগ নিয়ে চিঠি প্রদান করলেও তা আজ পর্যন্ত বাস্তবায়িত হয়নি। তিনি বলেন, চাকরি জাতীয়করণ না হওয়া পর্যন্ত কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে এই আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া হবে। ২৩ জানুয়ারি বান্দরবান জেলা প্রশাসক, জেলা পরিষদ ও সিভিল সার্জনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারক লিপি প্রদান করে ২৭ জানুয়ারি বান্দরবান জেলা প্রেসক্লাবে অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হবে। ৩১ জানুয়ারির মধ্যে এ দাবি বাস্তবায়ন করা না হলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আমরণ অনশন কর্মসূচী পালন করা হবে বলেও জানান তিনি।

ইয়াংছা কমিউনিটি ক্লিনিকের হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার উম্মে হায়াত আরজু বলেন, একাধিকবার চিঠি আসার পরও অজ্ঞাত কারণে চাকরি জাতীয়করণ করা হচ্ছে না। ইতিমধ্যে আমাদের চাকরির বয়সও শেষ হয়ে যাচ্ছে। তাই আমাদের দাবি দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য সরকারের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি। জেলা সিএইচসিপি এসোসিয়েশন সভাপতি মাসুদ খাঁণ বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষিত কর্মসূচী অনুসারে ২০,২১,২২ জানুয়ারী স্ব স্ব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অবস্থান কর্মসূচী পালন, ২৩ জানুয়ারী সিভিল সার্জন কার্য্যালয়ে অবস্থান কর্মসূচী ও স্মারকলিপি প্রদান এবং ২৪, ২৫ জানুয়ারী কর্মবিরতি পালিত হবে। এরপরও দাবী আদায় না হলে কেন্দ্রীয় কমিটির ঘোষনা অনুযায়ী যে কোন কর্মসূচী পালনে আমরা প্রস্তুত আছি।

একই ভাবে সকাল থেকে আলীকদম, বান্দরবান সদর, রুমা, থানছি, রোয়াংছড়ি, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় অবস্থান কর্মসূচী পালিত হয়েছে। এদিকে বান্দরবানের ৭টি উপজেলায় স্ব স্ব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্য কর্মীরা অবস্থান কর্মসূচী পালন করায় গ্রামের সাধারণ মানুষরা চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে জানায় স্থানীয়রা।