আইসিটিতে প্রাপ্তির বছর ২০১৭, প্রত্যাশা পূরণের ২০১৮

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক:
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) খাতের প্রাপ্তির বছর ২০১৭। বিদেশে পুরস্কার অর্জন, হাইটেক পার্ক চালু, দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল চালু, ডাক টাকার প্রচলন, সফটওয়্যার ও সেবা খাত রফতানিতে ৮০০ মিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাওয়াসহ প্রায় একশ’ অর্জন রয়েছে এই খাতে। আসছে বছর মানে ২০১৮ সালে চালু হবে ফোর-জি ও মোবাইল নম্বর পোর্টাবিলিটি (এমএনপি), উৎক্ষেপণ হবে দেশের প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১। তাই বলা হচ্ছে, আগামী বছর হবে প্রত্যাশা পূরণের।

বছর জুড়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিভিন্ন বিষয় আলোচনায় থাকলেও বছর শেষে রোবট মানবী সোফিয়ার আগমন সব আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে চলে আসে। ডিসেম্বরের প্রথম ১০ দিন পুরো দেশ যেন সোফিয়াতে বুঁদ হয়ে ছিল। এছাড়া এবারই প্রথম ১২ ডিসেম্বর আইসিটি ডে-২০১৭ পালিত হলো।

২০১৭ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশের অর্জন বিষয়ে জানতে চাইলে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘২০২১ সালের আগেই ডিজিটাল বাংলাদেশের বিনির্মাণের কাজ শেষ হবে। এরই মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশের ৫০ ভাগ নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে।’

এ সময় তিনি ২০১৮ সাল নিয়ে তার প্রত্যাশার কথা জানান। তিনি সেন্টার অব এক্সিলেন্স গড়ে তুলতে চান। যেখানে অগ্রসর প্রযুক্তির জন্য ছয় হাজার দক্ষ জনবল তৈরি করা হবে। এছাড়া সরকারি উদ্যোগে ওয়াইফাই হট-স্পট তৈরির পরিকল্পনার কথাও জানান তিনি। এজন্য নীতিমালা তৈরির উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৭ সালে দেশে ইন্টারনেট অব থিংস (আইওটি) স্থাপন করা হয়েছে, তথ্যপ্রযুক্তি ও সেবাপণ্য রফতানি করে আয় করেছে ৮০০ মিলিয়ন ডলার, ই-জুডিশিয়ারি প্রকল্পের অগ্রগতি, বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম ডাটা সেন্টার নির্মাণ কাজ শুরু, অ্যাপস ও গেমিং ডেভেলপমেন্ট ইন্ডাস্ট্রি প্রকল্পের যাত্রা, মহেশখালীকে ডিজিটাল দ্বীপে রূপান্তরের কাজের উদ্বোধন, ই-কমার্স নীতিমালার খসড়া চূড়ান্ত এবং তথ্যপ্রযুক্তি বিধিমালা (তদন্ত)-২০১৬ প্রণয়ন করা হয়েছে।

এছাড়া দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে ২, ৫ ও ১০ বছর মেয়াদি রোডম্যাপ তৈরি করেছে আইসিটি বিভাগ। স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদের রোডম্যাপ ধরে ২০১৭ সালে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

অন্যদিকে দেশের প্রথম সফটওয়্যার পার্ক হিসেবে যশোরে ‘শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক’ যাত্রা শুরু করেছে। গত ১০ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী এই পার্ক উদ্বোধন করেন। সারাদেশে তৈরি করা হয়েছে ২ হাজার ৯৭২টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব ও ল্যাঙ্গুয়েজ সেন্টার।

২০১৭ সালে বাংলাদেশ আইসিটি খাতে দুটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার অর্জন করে। অ্যাসোসিও আইসিটি এডুকেশন অ্যাওয়ার্ড-২০১৭ এবং ২০১৭ ই-এশিয়া অ্যাওয়ার্ড (সিলভার অ্যাওয়ার্ড) পায় বাংলাদেশ। দেশের তিন কোটির বেশি আনব্যাংকড (ব্যাংকিং সেবার বাইরের) মানুষকে ব্যাংকিং সুবিধা দিতেই এই টাকা চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ডাক বিভাগের মেইল গাড়িও চালু হয় এ বছর যাতে চালক হিসেবে প্রথমবারের মতো নিয়োগ পান নারীরা। গত সেপ্টেম্বরে দেশ পেয়েছে দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল।

আগামী দিনের প্রাপ্তি সম্পর্কে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছেন, ‘আমরা ২০১৮ সালে ফোর-জি,এমএনপি চালু করবো। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হবে। আমরা কোনও কাজ করার আগে অগ্রাধিকার সেট করে নিই। ফলে কাজ করতে এবং মনিটর করা সহজ হয়।’

২০১৭ সালে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট প্রকল্পের জন্য আন্তর্জাতিক পুরস্কারও পেয়েছে। গত ১৬ নভেম্বর ব্যাংককে আইটিইউ ইন্টারন্যাশনাল টেলি-কমিউনিকেশন ইউনিয়ন-পুরস্কার ২০১৬ দেওয়া হয়। কিন্তু ‘জাতীয় ব্রডব্যান্ড নীতিমালা-২০০৯’ হালনাগাদ হয়নি। আরও দুই বছর (২০১৫ সালে) আগেই এই নীতিমালার মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে। যদিও বারবার নীতিমালার সংজ্ঞা বদলেছে কিন্তু নীতিমালা হালনাগাদ হয়নি।

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন।