রামুতে কথিত অপহরণ মামলার ভিকটিমকে উদ্ধার করলো পুলিশ

সোয়েব সাঈদ, রামু।
রামুতে কথিত অপহরণ মামলার ভিকটিমকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। উদ্ধারকৃত ফাতেমা বেগম (১৫) খুনিয়াপালং ইউনিয়নের কালুয়ারঘোনা, কেচুবনিয়া এলাকার পেঠান আলীর মেয়ে। রামু থানা পুলিশ বৃহষ্পতিবার ২১ এপ্রিল সকালে ওই এলাকা থেকে ভিকটিম এ কিশোরীকে উদ্ধার করে।

জানা গেছে, গত ১৫ মার্চ ফাতেমা বেগমকে অপহরণের অভিযোগ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন ওই কিশোরীর পিতা পেঠান আলী। মামলায় ৯জনকে অভিযুক্ত করা হয়।

রামু থানার উপ-পরিদর্শক এসআই খায়ের ভিকটিম ফাতেমা বেগমকে উদ্ধারের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, বৃহষ্পতিবার সকালে ভিকটিম ফাতেমা বেগমকে তার বাড়ির সামনের রাস্তায় দেখতে পায় স্থানীয় লোকজন। পরে পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। তিনি আরো জানান, উদ্ধারকৃত ভিকটিম এখনো থানা হেফাজতে রয়েছে। ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি নেয়ার জন্য তাকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হবে।

এদিকে মামলায় অভিযুক্তরা জানিয়েছেন, পারিবারিক ও জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে তাদের হয়রানির জন্য এ অপহরনের অভিযোগে এ সাজানো মামলা করা হয়েছে। মামলার পরপরই তারা এ ঘটনাকে সাজানো বলে দাবি করে বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্তের জন্য প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে জোর দাবি জানিয়ে আসছিলো।

এ মামলায় অভিযুক্ত আলী আহমদের ছেলে কামাল উদ্দিন জানিয়েছেন, তার পিতার সাথে ওই এলাকার একাধিক প্রভাবশালী ব্যক্তির সাথে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিলো। এরই জের ধরে তার পিতাকেও এ মামলায় আটক করে হয়রানি করা হচ্ছে। তিনি এ মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং তার পিতাকে এ মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়ার দাবি জানান।