নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী ও দোছড়ি ইউপি নির্বাচন নৌকার পালে উন্নয়নের হাওয়া, ভোট গ্রহণ কাল

হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী, নাইক্ষ্যংছড়ি :
আজ রাত পোহালেই ভোট উৎসবে মেতে উঠবে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী ও দোছড়ি ইউনিয়নের ১২ হাজার নয়শ ৪৮ ভোটার। এদিকে নির্বাচনে আওয়ামীলীগ নৌকার পালে হাওয়া লাগিয়ে শংকাহীন ভাবে এগিয়ে চলছে। আর বিএনপি ধানের শীষ নিয়ে ভুগছে হতাশায়। তবে বিএনপির একাংশের নেতাদের দাবী, ভোট অবাধ ও সুষ্ঠু হলে তাদের প্রার্থীদের বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না। অন্যদিকে এলাকার সুশীল সমাজের নেতারা বলছেন, নৌকার পালে উন্নয়নের হাওয়া লেগেছে। তাই এলাকার লোকজন নৌকার বিকল্প চিন্তা করছে না।

ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, দোছড়িতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের আলহাজ্ব হাবিবুল্লাহ বিএনপির প্রার্থী আবদুর রশিদের চেয়ে অনেক এগিয়ে আছেন। বাইশারীতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মোহাম্মদ আলম ও বিএনপির মনিরুল হকের সঙ্গে তীব্র লড়াই হতে পারে। তবে সচেতন মহল কিছুটা মনিরুল হককে এগিয়ে রাখছেন। এ ইউনিয়নের আরেক প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল হাকিমও (মোটর সাইকেল) রয়েছেন আলোচনায়।

তৃতীয় ধাপে অনুষ্ঠিতব্য বাইশারী ও দোছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ভোট গ্রহণের প্রায় সব প্রস্তুতি ইসির নির্দেশক্রমে সম্পন্ন করেছে উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসন। নির্বাচনী বিধি অনুসারে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে শেষ হয়েছে প্রার্থীদের সবধরনের প্রচার-প্রচারণা। নির্বাচনী এলাকায় গত বুধবার মধ্যরাত থেকেই মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। নির্বাচনী অপরাধের সাজা দিতে মাঠে নেমেছে নির্বাহী ও বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটরা।

এছাড়া আজ মধ্যরাত ১২টা থেকে ২৩ এপ্রিল মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত ১ দিনের জন্য নির্বাচনী এলাকায় বেবিট্যাক্সি, অটোরিকশা, ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস, ট্রাক ও টেম্পো চলাচলও বন্ধ থাকবে।

এক্ষেত্রে রিটার্নিং কর্মকর্তার অনুমতি সাপেক্ষে প্রার্থী বা তার এজেন্ট, পর্যবেক্ষক, সাংবাদিক, নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও বৈধ পরিদর্শক ওইসব যান ব্যবহার করতে পারবেন।

জানতে চাইলে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এএসএম শাহেদুল ইসলাম ও থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আবুল খায়ের আমাদের রামু ডটকমকে বলেন, বাইশারী ও দোছড়ির ইউপি নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের লক্ষ্যে সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসন। নির্বাচনে যে কোন ধরণের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি মোকাবেলায় দুই ইউনিয়নের ১৮টি কেন্দ্রে বিজিবি, পুলিশ ও আনসার সদস্যরা নিয়োজিত থাকবেন। এছাড়া বিচারিক সহ পাঁচ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে কয়েকটি স্ট্রাইকিং ফোর্স দায়িত্ব পালন করবে।

বাইশারী ইউনিয়নের রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা অরুণ উদয় ত্রিপুরা আমাদের রামু ডটকমকে জানিয়েছেন, এ ইউনিয়নে তিনজন চেয়ারম্যান, ১০ জন সংরক্ষিত আসনের নারী প্রার্থী ও ২৯ জন সাধারণ সদস্য প্রার্থী নির্বাচনে লড়াই করছে।

দোছড়ি ইউনিয়নের রিটার্ণিং অফিসার ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবু আহমেদ জানিয়েছেন, এ ইউনিয়নে দুইজন চেয়ারম্যান, সাতজন সংরক্ষিত আসনের নারী প্রার্থী ও ২৪ জন সাধারণ সদস্য প্রার্থী নির্বাচনে লড়াই করছে।

উল্লেখ্য, বাইশারী ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা আট হাজার আটশ আটার ও দোছড়িতে চার হাজার একশ ত্রিশ।