ভোটের মাঠে হিসাব পাল্টাতে ফ্যাক্টর হেভিওয়েট স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা

চকরিয়া প্রতিনিধি:
কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ১৮ ইউনিয়নের মধ্যে তৃতীয় ধাপে শনিবার ২৩ এপ্রিল অনুষ্টিত হচ্ছে ১২টি ও পরবর্তী ৭ মে চতুর্থ ধাপে অনুষ্টিত হচ্ছে উপকুলীয় অঞ্চলের ৬টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট রির্টানিং কর্মকর্তারা তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে উপজেলার চিরিঙ্গা, বরইতলী, কৈয়ারবিল, ফাসিয়াখালী, ডুলাহাজারা, বমুুবিলছড়ি, সুরাজপুর-মানিকপুর, কাকারা, লক্ষ্যারচর, সাহারবিল, হারবাং ও বরইতলী সহ ১২টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদের প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্ধ দিয়েছেন।

তবে ৭ মে অনুষ্টিতব্য উপজেলার পশ্চিম বড়ভেওলা, পুর্ববড় ভেওলা, বদরখালী, কোণাখালী, ঢেমুশিয়া, বিএমচর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকা প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্ধ দেওয়া হবে ১৮এপ্রিল।

উপজেলার ১৮টি ইউনিয়নে এবার চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন ৮৬জন। তারমধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের ১৮জন, বিএনপির ১৭জন, জাতীয় পাটির (এরশাদ) ৬জন, জাতীয় পাটি (মঞ্জু)’র একজন সহ দলীয় মনোনয়ন নিয়ে প্রায় ৪২জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে ভোট যুদ্ধে রয়েছেন।

তাদের পাশাপাশি বর্তমানে এসব ইউনিয়নে দলীয় পরিচয় উপেক্ষা করে চেয়ারম্যান পদে ভোটের মাঠে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় শামিল হয়েছেন অন্তত আরো ৪৪জন প্রার্থী। তাদের মধ্যে রয়েছেন এলাকায় ব্যাপক জনপ্রিয় বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান চারজন ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান দুইজন। এছাড়া কয়েকটি ইউনিয়নে রয়েছে প্রভাবশালী কয়েকজন প্রার্থী। আবার অনেকে রয়েছেন বিত্তশালী। মুলত ভোটের মাঠে তাদের ব্যাপক জনপ্রিয়তা ও বিপুল অর্থ বিত্তের কাছে আওয়ামীলীগ-বিএনপির অনেক প্রার্থী এবারের নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার সম্ভাবনা পরিলক্ষিত হচ্ছে।

বলতে গেলে স্বতন্ত্র এসব হেভিওয়েট চেয়ারম্যান প্রার্থীরা দীর্ঘদিনের জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগাতে পারলে ভোটের মাঠে হিসাব পাল্টাতে সক্ষম হবেন। এই তালিকায় আছেন সাহারবিল ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ আবদুল হাকিম, লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মানিক, কোণাখালী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রুহুল কাদের মানিক, খুটাখালী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুর রহমান, হারবাং ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন আহমদ বাবর, পশ্চিম বড় ভেওলা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ সাহাব উদ্দিন, চিরিঙ্গা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কেএম ছালাহ উদ্দিন (খাজা ছালাহ উদ্দিন)।

অপরদিকে দলীয় পরিচয় উপেক্ষা করে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন তাদের মধ্যে ভোটের মাঠে বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে আছেন কৈয়ারবিল ইউনিয়নে যুবলীগ নেতা মক্কী ইকবাল হোসেন, খুটাখালী ইউনিয়নে আলহাজ জয়নাল আবেদিন, বরইতলী ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম, চিরিঙ্গা ইউনিয়নে ব্যবসায়ী জামাল হোসেন চৌধুরী, বিএমচর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ নেতা এসএম জাহাংগীর আলম, লক্ষ্যারচর ইউনিয়নে গোলাম মোস্তাফা কাইছার, কোণাখালী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ নেতা মোক্তার আহমদ, বদরখালী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ নেতা হেফাজ সিকদার, খাইরুল বশর, ঢেমুশিয়া ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ নেতা গিয়াস উদ্দিন, ফাসিয়াখালী ইউনিয়নে সাংবাদিক মাইন উদ্দিন হাসান শাহেদ।

জানা গেছে, এবারের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন ফাসিয়াখালী ইউনিয়নে সাংবাদিক মাইন উদ্দিন হাসান শাহেদ (আনারস)। হারবাং ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন আহমদ বাবর (আনারস)। সুরাজপুর-মানিকপুর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ নেতা রোস্তম শাহরিয়ার (ঘোড়া), জাহাংগীর আলম (আনারস), বরইতলী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম ( মোটর সাইকেল), কৈয়ারবিল ইউনিয়নে মক্কী ইকবাল হোসেন (আনারস) ও জাতীয় পাটির (এরশাদ) প্রার্থী ফয়জুল করিম (লাঙ্গল)। খুটাখালী ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুর রহমান (আনারস), জাতীয় পাটির (মঞ্জু) প্রার্থী সাংবাদিক এমএইচ আরমান চৌধুরী (বাই সাইকেল), জাতীয় পাটি (এরশাদ) মুহাম্মদ আবদুর রহমান (লাঙ্গল), আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী জয়নাল আবেদিন ( ঘোড়া), স্বতন্ত্র প্রার্থী আরাফাত কামাল জিকু (অটোরিক্সা), মাইন উদ্দিন (রজনীগন্ধা) ও কুতুব উদ্দিন ( টেলিফোন)। সাহারবিল ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ আবদুল হাকিম (আনারস)। বমুবিলছড়ি ইউনিয়নে কফিল উদ্দিন (আনারস), জাতীয় পাটি (এরশাদ) মো.সোলাইমান (লাঙ্গল) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান (ঘোড়া)। ডুলাহাজারা ইউনিয়নে জাতীয় পাটি (এরশাদ) প্রার্থী নুরুল আমিন (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী কলিম উল্লাহ (চশমা), নুরুল আলম (মোটর সাইকেল), আবু ছৈয়দ ( ঘোড়া) ও নজির আহমদ (আনারস)। লক্ষ্যারচর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মানিক (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম মোস্তাফা কাইছার (ঘোড়া) ও ফরিদুল আলম (চশমা)। চিরিঙ্গা ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান কেএম ছালাহ উদ্দিন প্রকাশ খাজা ছালাহ উদ্দিন (মোটর সাইকেল), জামাল হোসেন চৌধুরী (আনারস) ও সাহাব উদ্দিন (চশমা)।

অপরদিকে আগামী ৭ মে অনুষ্টিতব্য উপজেলার উপকুলীয় ছয় ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন বদরখালী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ নেতা মো: আলী, আ.লীগ নেতা সাবেক মেম্বার খাইরুল বশর, তরুণ রাজনৈতিকবিদ আবু নঈম মোহাম্মদ হেফাজ সিকদার।

এখানে বিশাল ভোট ব্যাংক সৃষ্টি হওয়ায় তৃণমূলে আ.ন.ম হেফাজ সিকদার এগিয়ে রয়েছেন বলে সাধারণ ভোটার’রা জানিয়েছেন। কোনাখালী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ নেতা মোক্তার আহমদ, সাবেক চেয়ারম্যান রুহুল কাদের মানিক, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ ইলিয়াছ, আক্তার উদ্দিন, বিএনপি নেতা আজিজুল হক মধু। পশ্চিম বড় ভেওলা ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ নেতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান সাহাবউদ্দিন, এস এম সরোয়ার আলম, ছাত্রলীগ নেতা রবিউল এহেছান, ছলিম উল্লাহ, ওসমান গণি ও নুরুল মোস্তফা। ঢেমুশিয়া ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ নেতা গিয়াস উদ্দিন, আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ কায়েস ও ফরিদুল আলম। বিএমচর ইউনিয়নে কাজী মোঃ আবু তৈয়ব, আওয়ামীলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, শহীদুল ইসলাম, ইসলামী আন্দোলনের মোঃ ওয়াজ উদ্দিন। পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নে আ.লীগ নেতা নাছির উদ্দিন রুবেল ও সাইফুল ইসলাম।

এসব ইউনিয়নের প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্ধ দেওয়া হবে ১৯এপ্রিল।