রামুতে পরকীয়ার জেরে কুপিয়ে হত্যা, আটক ২

আমাদের রামু প্রতিবেদক:
রামুতে পরকীয়া প্রেমের জেরে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার (২৭ অক্টোবর) দিবাগত রাত একটার দিকে রামু উপজেলার খুনিয়পালং ইউনিয়নের ২ ওয়ার্ডের আওতাধিন পশ্চিম দারিয়ারদিঘী হেডম্যানপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

হত্যাকান্ডের শিকার আবদুল জব্বার (২৮) ওই এলাকার রশিদ আহমদ ফকিরের ছেলে। পুলিশ এ ঘটনায় ২জনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলো পার্শ্ববর্তী এলাকার খেদারঘোনার মীর আহমদের ছেলে জিয়াবুল হক এবং মালয়েশিয়া প্রবাসী শামসুল আলমের স্ত্রী পরকীয়ায় লিপ্ত ৪ সন্তানের জননী ভেলুয়ারা বেগম (২৮)।

নিহত আবদুল জব্বারের ভগ্নিপতি সুলতান আহমদ ও চাচা রমিজ আহমদ জানিয়েছেন, ভেলুয়ারা বেগমের কক্ষে গিয়ে গভীর রাতে পরকীয়া লিপ্ত হন আবদুল জব্বার। এসময় ভেলুয়ারা বেগমের ভাতিজা জিয়াবুল হক আপত্তিকর অবস্থায় তাদের দেখে ফেলেন। এসময় ক্ষিপ্ত হয়ে জিয়াবুল হক দা নিয়ে আবদুল জব্বারের মাথায় কোপ দেয়। এতে ব্যাপক রক্তক্ষরণ হলে ঘটনাস্থলে প্রাণ হারান আবদুল জব্বার। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, হত্যার অভিযোগে আটক জিয়াবুল হক রোহিঙ্গা যুবক। কয়েকমাস পূর্বে সে এ এলাকায় আশ্রয় নিয়েছে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান রামু থানার এসআই ছানা উল্লাত। তিনি মৃতদেহ উদ্ধার এবং জনতার সহায়তায় ঘাতক জিয়াবুল হক এবং পরকীয়ায় লিপ্ত ভেলুয়ারা বেগমকে আটক করেন।

এসআই ছানা উল্লাহ জানান, পরকীয়ার জেরে এ ঘটনা ঘটেছে। হত্যার অভিযোগে জিয়াবুল হক ও পরকীয়ায় লিপ্ত ভেলুয়ারা বেগমকে আটক করা হয়েছে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এম লিয়াকত আলী হত্যার বিষয়টি স্বীকার করে জানান, এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পেলে মামলা রুজু করা হবে।