রামুতে বাল্য বিয়ে ঠেকাতে ইউএনও’র ব্যতিক্রমী আয়োজন কনের এলাকার কাজী অফিসে বিয়ে রেজিস্ট্রির অঙ্গীকার নিকাহ রেজিস্ট্রারদের

সোয়েব সাঈদ, রামু।
কক্সবাজারের রামু উপজেলাকে বাল্য বিয়ে মুক্ত করার লক্ষ্যে সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে উপজেলার ১১ ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রারগন বাল্য বিয়ে প্রতিরোধের লক্ষ্যে কনের এলাকার কাজী অফিসে বিয়ে রেজিস্ট্রি করার অঙ্গীকার করেছেন। সভায় নিকাহ রেজিস্ট্রারগন বাল্য বিয়ে বন্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উদ্যোগকে স্বাগত জানান।

২৯ মার্চ মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় রামু উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিনা কাজীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত “বাল্যবিয়ে নিরোধ” শীর্ষক সভায় নিকাহ রেজিস্ট্রারগন এ অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিনা কাজী বলেন, বাল্য বিয়ে একটি সামাজিক ব্যাধি হিসেবে রূপ নিয়েছে। তাই বাল্য বিয়ে রোধে সকলকে সোচ্চার এবং প্রতিরোধ গড়ে তোলতে হবে।

সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্মকর্তা মাহবুবুল করিম, রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফরিদা ইয়াছমিন, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. জসীম উদ্দীন ইউছুপ, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শিরিন ইসলাম, ইউপি চেয়ারম্যানদের মধ্যে ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা নুরু লহক (কাউয়ারখোপ), আবদুল করিম (রশিদনগর), সিরাজুল ইসলাম ভূট্টো (ফতেখারকুল), নুরুল আমিন (কচ্ছপিয়া), সাইফুল ইসলাম (দক্ষিণ মিঠাছড়ি), মুফিদুল আলম (চাকমারকুল), নিকাহ রেজিস্ট্রারদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার জেলা নিকাহ রেজিষ্ট্রার সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দীন (কচ্ছপিয়া), কাজী মুজিবুর রহমান চৌধুরী (জোয়ারিয়ানালা), কাজী এরশাদুল্লাহ (ফতেখারকুল), কাজী সাইফুদ্দীন (চাকমারকুল), কাজী নেছার উদ্দীন (গর্জনীয়া), কাজী এম,আবদুল্লাহ আল মামুন (কাউয়ারখোপ), কাজী তৌহিদুল্লাহ চৌধুরী (রশিদনগর), কাজী আবুবক্কর ছিদ্দিক (রাজারকুল), কাজী মোঃ হাসান (খুনিয়াপালং), কাজী ছৈয়দুল হক (দক্ষিণ মিঠাছড়ি), কাজী নুরুল হাসান (ইদগড়), হিন্দু বিবাহ নিবন্ধক ডাঃ সুজিত শর্মা (রামু উপজেলা), রামু  বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিম, আমাদের রামু ডটকম এর সম্পাদক ও রামু কেন্দ্রীয় সীমা বিহারের  প্রজ্ঞানন্দ ভিক্ষু, উপজেলা ওলামালীগের সভাপতি নুরুল আজিম, সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দীন, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল্লাহ মোঃ ফোরকান, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আবু বকর প্রমূখ।

এছাড়াও সভায় বিভিন্ন এনজিও প্রতিনিধি, মসজিদের ইমাম, পুরোহিত এবং ধর্মীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।