সর্বশেষ সংবাদঃ

নাইক্ষ্যংছড়িতে মাটিচাপায় তিন শ্রমিক নিহতের ঘটনায় মামলা, তদন্ত কমিটি গঠন

হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী :
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নের মঞ্জয়পাড়ায় পাহাট কাটতে গিয়ে মাটিচাপা পড়ে তিন শ্রমিক নিহতের ঘটনায়- বাগান মালিক একই গ্রামের রাজেন্দ্র বড়ুয়ার ছেলে সুপায়েন বড়ুয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঘুমধুম গ্রাম পুলিশ প্রধান ছৈয়দ আলম বাদি হয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি থানায় দন্ডবিধি ৩০৪(ক)/১১৪ তথসহ ভূমি ইমারত আইনের ১২(১১) ধারায় মামলাটি রুজু করেন। মামলার বাকি তিনজন আসামি হলেন-সোপায়েন বড়ুয়ার ভাই রিটন বড়ুয়া, ভুট্টো বড়ুয়া ও প্রতিয়া বড়ুয়া। তবে গতকাল পর্যন্ত তাঁদের কাউকেই গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

এদিকে এ ঘটনা তদন্তে বান্দরবান জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মফিদুল আলমকে প্রদান করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, বান্দরবানের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইয়াসিন আরফাত, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম সরওয়ার কামাল, বান্দরবান ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের এডি ইকবাল হোসেন ও স্থানীয় ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম জাহাঙ্গির আজিজ। তদন্ত কমিটির সদস্যরা গতকাল মঙ্গলবার ঘটনাস্থলে যান।

নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ওসি শেখ আলমগীর বলেন, মাটিচাপায় তিন শ্রমিক নিহতের ঘটনায় মামলা হয়েছে। আসামিরা ঘর তালাবদ্ধ করে পালিয়েছে। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

তদন্ত কমিটির সদস্য ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এসএম সরওয়ার কামাল বলেন, ‘আমরা ঘটনাটি অধিক গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করবো। আজ বুধবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করবেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং। তিনি নিহত এবং আহত পরিবারের সদস্যদেরকে নগদ অর্থও বিতরণ করবেন।’

উল্লেখ্য, গত সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় ঘুমধুম ইউনিয়নের মঞ্জয়পাড়ায় পাহাড় কাটার সময় মাটি চাপা পড়ে পাঁচ শ্রমিক নিখোঁজ হন। ওই পাহাড়টি বন বিভাগ থেকে লিজ নিয়ে স্থানীয় সোপায়েন বড়ুয়ার পরিবার অবৈধভাবে ড্রেন নির্মাণ করছিল। পরে স্থানীয়রা নুর মোহাম্মদ (২৫) নামে একজনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে কক্সবাজারে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে দেন। ঘটনার সাত ঘন্টা পর সন্ধ্যায় নুরুল হাকিমকে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করেন দমকলবাহিনীর সদস্যরা। দীর্ঘ উদ্ধার তৎপরতা শেষে রাত সাড়ে আটটায় বাকি তিন শ্রমিক- মো. আবু (৩০), সোনা মেহের (৩৫) ও জসীম উদ্দিনের (২৫) লাশ উদ্ধার করা হয়।

মন্তব্য করুন

(বিঃ দ্রঃ আপনার ইমেইল গোপন রাখা হবে) Required fields are marked *

*

Shares