‌‘খালেদা জিয়াকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করতে নির্লজ্জভাবে তল্লাশি চালানো হয়েছে’

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:

বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করতে তাঁর রাজনৈতিক কার্যালয়ে নির্লজ্জভাবে তল্লাশি চালানো হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন কক্সাবাজার সদর-রামু আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির মৎস্যজীবী বিষয়ক সম্পাদক লুৎফুর রহমান কাজল। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের প্রতীক, শান্তির প্রতীক। বিনা কারণে তাঁর রাজনৈতিক কার্যালয়ে তল্লাসী করা খুবই দুঃখজনক বিষয়। আওয়ামী লীগ বিভিন্নভাবে খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিকভাবে বিপর্যস্ত করার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। জনগণ তা সফল হতে দেবেনা।

গুলশান কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাসীর প্রতিবাদে রবিবার (২১ মে) বিকালে শহীদ সরণিস্থ জেলা বিএনপির কার্যালয় প্রাঙ্গনে বিক্ষোভ সমাবেশের প্রধান অতিথি লুৎফুর রহমান কাজল এসব কথা বলেন।

জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য শাহজাহান চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় তিনি বলেন, পুলিশকে অকারণে অপব্যবহার করে বিরোধী দলের অফিস তছনছ করার মতো অপরাজনীতিকে আমরা বাংলাদেশ থেকে বিদায় করতে চাই। বিএনপি যখন শান্তিপূর্ণ, গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক চর্চার উদ্যোগ শুরু করেছে, ভিশন-২০৩০ দিয়েছে, তখন এ ধরনের আগ্রাসন গণতন্ত্রের ন্যূনতম ভবিষ্যৎ নষ্টের পাঁয়তারা এবং উসকানিমূলক আচরণ। কাজল বলেন, সরকার যে স¤পূর্ণ বেআইনিভাবে এ কাজটি করেছে সেজন্য অবশ্যই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জবাব দিতে হবে। তাকেই এর দায় বহন করতে হবে।

জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক অধ্যাপক আকতার চৌধুরীর পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এটিএম নুরুল বশর চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এডভোটেক শামীম আরা স্বপ্না, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও পৌর বিএনপির সভাপতি রফিকুল হুদা চৌধুরী, জেলা শ্রমিকদলের সভাপতি পৌর প্যানেল মেয়র রফিকুল ইসলাম, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রাশেদ মোঃ আলী, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক পৌর প্যানেল মেয়র জিসান উদ্দিন জিসান, জেলা মহিলাদলের সভাপতি ও জেলা বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক নাসিমা আক্তার বকুল, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রাসেদুল হক রাসেল, সিনিয়র সহ-সভাপতি সরওয়ার রোমন, সধারণ সম্পাদক এড. মনির উদ্দিন মনির, জেলা স্বোচ্ছাসেবকদলের যুগ্ম-সম্পাদক আবছার কামাল, পৌর শ্রমিকদলের সভাপতি এস্তাক আহমদ প্রমুখ।

চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে পুলিশের তল্লাশি এবং ভাঙচুরকে গণতন্ত্রের জন্য হুমকি মনে করে সভাপতির বক্তৃতায় শাহজাহান চৌধুরী বলেন, রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে, জনগণের অধিকার আদায়ের ক্ষেত্রে এ ঘটনাটি অত্যন্ত ঘৃণিত এবং ন্যক্কারজনক, যা বাংলাদেশের রাজনীতিতে কলঙ্কের অধ্যায় হয়ে থাকবে। বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপি, যুবদল, শ্রমিকদল ও ছাত্রদলসহ বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিছিল সহকারে অংশগ্রহণ করেন।