রামুতে ভোটের ক্ষণ গণনার আগেই সম্ভাব্য ৬৬ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মাঠ গরমের চেষ্ঠা

হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী, স্টাফ রিপোর্টার
আমাদের রামু ডটকম :
এখনো শুরু হয়নি ভোটের ক্ষণ গণনা। এর আগেই কক্সবাজারের রামুর পাড়া-মহল্লায় বইছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের (ইউপি) আমেজ। সম্ভাব্য প্রার্থীদের শুভেচ্ছা আর পোস্টার-বিলবোর্ডে ছেয়ে যাচ্ছে নির্বাচনী এলাকা। ইতোমধ্যে ইউনিয়নের হাট-বাজারে রঙিন পোস্টার আর ফেস্টুন টাঙিয়ে জানানো হচ্ছে শুভেচ্ছা বার্তা।

চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত আসনের প্রার্থীরা অংশগ্রহণ করছেন মাহফিল, ধর্মীয় উৎসব সহ নানা সামাজিক অনুষ্ঠান আর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে। ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়েও জানছেন কুশলাদি। আর বড় দুই দলের দলিয় মনোনয়ন পেতে স্থানীয় হাইকমান্ডে চলছে জোর লবিং আর তদবির। নির্বাচনকে সামনে রেখে ঘরোয়া নির্বাচনী সভা নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা।

রামুর এগার ইউনিয়নে ৫ম ও ৬ষ্ঠ ধাপে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এ কারণে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা মরিয়া হয়ে উঠেছেন নৌকা প্রতীক পাওয়ার জন্য, “তারা নৌকায় উঠলেই দরিয়া পার মনে করছেন!” নৗকা প্রতীক নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে কিছু সুবিধাবাদী লোকজনও। তারা ছলে-বলে-কৌশলে নৌকাতে উঠতে চেষ্টা করছেন। নৌকা মানেই যেন বিজয়ের মালা গলায় পরা।

তবে যারা দীর্ঘদিন দলের জন্য মাঠে-ময়দানে কাজ করেছেন তারাই নৌকার মাঝি হবেন বলে আশা করছেন আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতারা। যারা ইতিপূর্বে আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে জামায়াত-বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে সমম্পৃক্ত ছিল এ ধরণের লোক নৌকার প্রার্থী হলে দলের মান সম্মান ধুলাই মিশবে বলেও মনে করছেন তারা।

এদিকে উপজেলার এগার ইউনিয়নের চায়ের দোকানগুলোতে এখন শুধুই নির্বাচনী আলাপ। আড্ডার চলে উঠে আসছে প্রার্থীদের নানা কাহিনী। আমাদের রামু এর সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এ পর্যন্ত ৬৬ জন সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীর নামের তালিকা পেয়েছে এ প্রতিবেদক। এদের মধ্যে বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যান, আওয়ামীলীগ-বিএনপি-জামায়াতের শক্তিশালী প্রার্থীর পাশাপাশি অনেক তরুণও রয়েছেন।

ঈদগড় ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ আহমদ ভুট্টু, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি নুরুল ইসলাম বাঙ্গালি, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ আয়ুব তাহের, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আবু বক্কর ও ইউনিয়ন জামায়াতের আমির দিদারুল আলম।

গর্জনিয়া ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান সাবেক জাসদ নেতা ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক তৈয়ব উল্লাহ চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব গোলাম মওলা চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি মুজিবুর রহমান বাবুল চৌধুরী, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্তমান সভাপতি ফরিদ আহমদ চৌধুরী, ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুহিবুল্লাহ, আওয়ামীলীগনেতা ইয়াহিয়া চৌধুরী, ইউনিয়নের সামাজিক উদ্যোক্তা ও বর্তমান চেয়ারম্যানের বড় ছেলে শাহারীয়ার ওয়াহেদ এবং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান।

কচ্ছপিয়া ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগনেতা দাবিদার নুরুল আমিন, সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মৌলভি মোক্তার আহমদ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি জাকের আহমদ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মনজুরুল আলম, সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগনেতা হাবিব আহমদ, উপজেলা বিএনপির সদস্য রফিকুল আলম, ইউনিয়ন জামায়াতের আমির আবদুল হান্নান, ইউনিয়ন বন্ধু মহলের সভাপতি তৈয়ব উল্লাহ এবং ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি মাইমুনুল হক মামুন।

কাউয়ারখোপ ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান নুরুল হক, সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগনেতা শামশুল আলম, আওয়ামীলীগনেতা ও সাবেক ইউপি সচিব শফিউল আলম, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোস্তাক আহমদ ও উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি ওসমান সরওয়ার মামুন।

ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপিনেতা সিরাজুল ইসলাম ভুটট, সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগনেতা ফরিদুল আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল হক চৌধুরী, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক তপন মল্লিক, জেলা যুবলীগনেতা পলক বড়ুয়া আপ্পু, উপজেলা শ্রমীকলীগের সভাপতি নুরুল কবির হেলাল, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মো: হেলাল উদ্দিন ও উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আবুল বশর বাবু।

জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপিনেতা এস. এম নুরুচ্ছাপা, সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও ফরিদ বক্ত বাবুল, বিএনপি সমর্থক গোলাম কবির সওদাগর, আওয়ামীলীগনেতা কামাল সামশুদ্দিন আহমদ, আওয়ামীলীগনেতা আবছার কামাল সিকদার ও ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আনছারুল আলম।

রাজারকুল ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির যুগ্ন-আহবায়ক আলহাজ্ব মোহাম্মদ আবদুর রহিম, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সরওয়ার কামাল সোহেল, আওয়ামীলীগনেতা মুফিজুর রহমান, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি তারেক সরওয়ার, আওয়ামীলীগনেতা মোহাম্মদ হানিফ সিকদার, আওয়ামীলীগনেতা স্বপন বড়ুয়া, আওয়ামীলীগ সমর্থক মোহাম্মদ হাশেম এবং সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগনেতা জাফর আলম চৌধুরী।

খুনিয়াপালং ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগনেতা সাংবাদিক আবদুল মাবুদ, উপজেলা বিএনপির আহবায়ক ও সাবেক চেয়ারম্যান ফেরদৌস আলম, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুল গণি সওদাগর, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগনেতা আবদুস সালাম কালু ও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ফরিদুল আলম।

রশিদ নগর ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব আবদুল করিম, সাবেক বিএনপিনেতা শাহ আলম এমইউপি, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বজল আহমদ বাবুল, আওয়ামীলীগ সমর্থক মোহাম্মদ হান্নান সিদ্দিকি ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মিজানুল করিম।

চাকমারকুল ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপিনেতা মফিদুল আলম, আওয়ামীলীগনেতা  মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম নুরু, ও আওয়ামীলীগনেতা আবুল হোছেন কোম্পানী।

দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপিনেতা সাইফুল আলম, আওয়ামীলীগনেতা ইউনুছ ভুট্টু, ও আওয়ামীলীগনেতা মনিরুল আলম চৌধুরী।