এডামটিজিংয়ের শিকার রামু থানার ওসি প্রভাষ

হফিজুল ইসলাম চৌধুরী, স্টাফ রিপোর্টার
আমাদের রামু ডটকম :

হরহামেশা ঘটছে ইভটিজিংয়ের ঘটনা। তাই ইভটিজিং প্রতিরোধে সারা দেশে কাজ করে যাচ্ছে ইউএনও এবং পুলিশ। বিশেষ করে কক্সবাজারের রামু থানায় যোগদানের পর থেকে নবাগত ওসি বাল্য বিবাহ, ইভটিজিং ও সন্ত্রাসীদের দমনে নানা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

ওসির নির্দেশে উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ইভটিজিং ও বাল্য বিবাহ বন্ধে তৎপরতা চালাচ্ছে পুলিশ সদস্যরা।

কিন্তু এবার এর ব্যত্যয় ঘটিয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর নিজেই এডামটিজিংয়ের শিকার হয়েছেন।

একটি মেয়ে ৮ মার্চ (বিশ্ব নারী দিবসে) মুঠোফোনের মাধ্যমে এ কান্ড ঘটিয়েছেন।

ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর আমাদের রামুকে জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রামু সফর নিয়ে তিনি এমনিতেই ব্যস্ত রয়েছেন, এমতবস্থায় মঙ্গলবার সকাল ১১টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত ০১৮৬৬৬১৩৩২৭ নম্বর থেকে একটি মেয়ে কল করে নানা কথা বলে উত্যক্ত করেছেন। এক পর্যায়ে এ ধরণের পরিস্থিতি সহ্য করতে না পেরে তিনি নিজের মুঠোফোন অন্য জনকে দিয়ে ওই মেয়ের সঙ্গে কথা বলান।

মুঠোফোনে জানতে চাইলে জনৈক মেয়েটি জানিয়েছেন, তার নাম মুন্নি। নিজের বাড়ি কক্সবাজারের উখিয়ার উত্তর পুকুরিয়া গ্রামে। মেয়েটি বলেন, উনি ওসি হলে কি হবে! উনারও একটি মন আছে? চাইলে আমার সাথে সুন্দর করে কথা বলতে পারতো।

উল্লেখ্য, আমাদের সমাজে মেয়েরা হয়তো এখন ইভটিজিংয়ের শিকার হচ্ছে বলে প্রচার হয় বেশি। কিন্তু লোকচক্ষুর অন্তরালে রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধরের মত অসংখ্য পুরুষ এডামটিজিংয়ের শিকারও হচ্ছেন। তাই ইভটিজিংয়ের পাশাপাশি এডামটিজিংয়ের বিরুদ্ধে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে।