ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যতার মধ্য দিয়ে জেলায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী পালিত

এম.এ আজিজ রাসেল:
ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যতার মধ্য দিয়ে জেলাব্যাপী পালিত হয়েছে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)। এ উপলক্ষে ১৩ ডিসেম্বর পবিত্র ১২ রবিউল আউয়াল সকাল ১০টায় আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত, জেলা গাউছিয়া কমিটি ও খান-এ জোহাদিয়া শরীফের যৌথ উদ্যোগে মাদ্রাসা-এ-তৈয়্যবিয়া তাহেরিয়া সুন্নিয়া প্রাঙ্গণ থেকে বর্ণাঢ্য জশনে জুলুছ বের করা হয়।

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের সভাপতি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান ও জেলা গাউছিয়া কমিটির সাধারণ সম্পাদক জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব শফিকুর রহমান কোম্পানীর নেতৃত্বে বিশাল জশনে জুলুছ শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়।

সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ মাদ্রাসা-এ-তৈয়্যবিয়া তাহেরিয়া সুন্নিয়া এর সুপার মাওলানা শাহাদাত হোসেন আল কাদেরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আলহাজ্ব শফিকুর রহমান কোম্পানী বলেন, মানবতার শান্তির দূত বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর পৃথিবীতে আগমণ উপলক্ষে প্রতি বছর নানা আয়োজন করা হয়। যার মধ্যে অন্যতম বিশাল এই জশনে জুলুছ।

বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে ঈদে মিলাদুন্নবী (স.)-এর আগমন খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। রাসুলুল্লাহ (স.) গোত্রীয় শাসনের স্বৈরাচারে দগ্ধ, মুষ্টিমেয় বিত্তশালীর শোষণে নিঃস্ব, সামাজিক দূরাচারে অতিষ্ঠ মানুষের মুক্তির স্বপ্ন দেখেছিলেন। তিনি বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে তাওহিদের বাণী বিশ্বময় পৌছে দিয়েছেন। বর্তমান সরকার আজকের দিনটি গুরুত্ব সহকারে পালন করছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জশ্নে জুলুছে ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (দ.) উদযাপন কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব ওমর সুলতান ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুল হক, গাউছিয়া কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী, সহ-সভাপতি যুগ্ন সম্পাদক মোঃ আজিম, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক ইকরামুল হক রানা, জয়নাল আবেদীন কোম্পনী, আলহাজ্ব রশিদ মাস্টার, মাদ্রাসা কর্মকর্তা মাওলানা সালাউদ্দিন মোঃ তারেক ও এডভোকেট রানা। এর আগে ভোর সকাল থেকে জশনে জুলুছে যোগ দিতে শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে ছোট ছোট র‌্যালীর মাধ্যমে ফিশারীঘাটস্থ মাদ্রাসা-এ-তৈয়্যবিয়া তাহেরিয়া সুন্নিয়া প্রাঙ্গণে আসতে থাকে নবী পাগলরা।

ছোট শিশু থেকে শুরু করে আবাল বৃদ্ধা বণিতাও রাসূল (সা.) এর প্রতি ভালবাসার টানে ছুটে আসে এখানে। সকাল ১০টার দিকে হাজার হাজার মানুষের সম্মিলনে জশনে জুলুছ বের করা হয়।

এছাড়া জেলার বিভিন্ন মাদ্রাসা ও ধর্মীয় সংগঠন পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে খতবে কোরআন, শুকরিয়া নামাজ, দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা ও জিকির আজগর পালন করেন। বিকেলে ধর্মপ্রাণ মুসলমান স্বজনদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় কবর জিয়ারত করেন।