রামুতে পবিত্র ১২ রবিউল আওয়াল উপলক্ষে জুলুস পালিত

আমাদের রামু প্রতিবেদক:
কক্সবাজারের রামু উপজেলা পরিষদ ও আঞ্জুমানে নকশবন্দীয়া মুজাদ্দেদিয়া বাংলাদেশ রামু উপজেলা শাখা, রামু উপজেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের ব্যবস্থাপনায় ওস্তাজুল ওলামা হযরতুলহাজ্ব অধ্যক্ষ মুফতি সৈয়্যদ মোহাম্মদ উল্লাহ নকশবন্দীর সভাপতিত্বে এবং আবদুল মালেকের সঞ্চালনায় ঐতিহাসিক ১২ রবিউল আওয়াল পবিত্র ঈদ- এ মিলাদুন্নবী (স.) উপলক্ষে জুলুস (র‌্যালী) ও ঈদ এ মিলাদুন্নবী (স.) মঙ্গলবার ১৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম। তিনি বলেন, রাসুল (স.) ছিলেন অসাম্প্রদায়িক চেতনার মূর্ত প্রতীক। তিনি মদিনা সনদ প্রবর্তন করে মদিনা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেন। মদিনা সনদে তিনি যেভাবে সকল ধর্ম- বর্ণ নির্বিশেষে সকল ধর্মের মানুষের অধিকার নিশ্চিত করেছেন। তা তাঁর অসাম্প্রদায়িক চেতনার পরিচয় বহন করে।

বিশেষ অতিথি ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান আলী হোসেন, রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহজাহান আলী, প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম আল আমিন বারিয়া কামিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ হযরতুলহাজ্ব আল্লামা আবদুল আজিজ আনোয়ারী, বিশেষ অতিথি ছিলেন, রাজারকুল চেয়ারম্যান মুফিজুর রহমান, কাউয়ারখোপ চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ।

রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহজাহান আলী বলেন, রাসুল (স.) ছিলেন সমগ্র সৃষ্টির জন্য রহমত। তাঁর রহমত হতে কেউ বিচ্ছিন্ন নয়। বর্তমান পৃথিবীতে যারা মুসলমানদের নাম ব্যবহার করে মুসলমানদেরকে সন্ত্রাসী ধর্মে পরিণত করার চক্রান্তে লিপ্ত হচ্ছে। তারা মুসলমান নয়। তারা বিভিন্ন পাশ্চাত্য গোষ্ঠীর সৃষ্টি। ইসলাম কখনো সন্ত্রাসকে সমর্থন করে না । যারা ইসলামের নামে সন্ত্রাসবাদ করছে তারা রাসুলের আদর্শ হতে বিচ্যুত হওয়ার কারণে এ দশা। এ ব্যাপারে আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে।

প্রধান বক্তা চট্টগ্রাম আল আমিন বারিয়া কামিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ হযরতুলহাজ্ব আল্লামা আবদুল আজিজ আনোয়ারী বলেন, ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) উদযাপন করা কুরআন হাদিস সম্মত কুরআন এবং হাদীসে এর যথেষ্ট প্রমাণ আছে। যারা আজ ঈদ এ মিলাতুন্নবী (স.) এর বিরোধীতা করে তারা অজ্ঞতাবশত এ কাজ করে থাকে। ঈদ এ মিলাদুন্নবী (স.) উদযাপন করা প্রত্যেক মুসলমানদের ঈমানী দায়িত্ব। তাই আমাদের সবাইকে এতে অংশ গ্রহন করতে হবে।

জশনে জুলুসে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মাওলানা কাজী আবু বক্কর ছিদ্দিকী । অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন মাওলানা কারী আবদুর রশিদ হক্কানী, মাওলানা রেজাউল করিম, মাওলানা আবু সৈয়্যদ, মাওলানা আবদুস সালাম, মাওলানা মুহাম্মদ ফেরদাউস, মাওলানা সালেহ আহমদ নকশবন্দী, ইসলামী ফাউন্ডেশনের সুপারভাইজার সাইফুদ্দিন খালেদ, উপস্থিত ছিলেন মাওরানা সোয়াইব উল্লাহ, মাওলানা আবদুস সালাম নকশবন্দী, মাওলানা হাফেজ নুরুল আলম ফারুকী, মাওলানা লোকমান হাকিম,মাওলানা আবদুর রাজ্জাক, মুজিবুল আলম, মাওলানা রমিজ আহমদ, মাওলানা মমতাজুল আলম নুরী, মাওলানা আবদুল কাদের, মাওলানা মোহাম্মদ মিজান উল্লাহ, মাওলানা আবদুল গফুর, মাওলানা মোজাম্মেল হক, মাওলানা আবদুল গনি, মাষ্টার ছালামত উল্লাহ, মাওলানা নুরুল আলম, আজিজুল ইসলাম, নুরুল আলম,এস এম ছফিউল্লাহ মুনির, সাইফুল ইসলাম, মাওলানা মাষ্টার আইয়ুব আলী, এস এম নিয়ামত উল্লাহ, খাজা মোহাম্মদ বাকী বিল্লাহ, এহেছান, ইমরান হোছাইন, রাহমত উল্লাহ, মাওলানা কাসেম কাদেরী, মাওলানা জামাল উদ্দিন আনসারী, নুরুল ইসলাম, মোবারকসহ রাজনৈতিক, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবি, আইনজীবিসহ সর্বস্তরের জনসাধারণ উপস্থিত ছিলেন।

পবিত্র ১২ রবিউল আওয়াল উপলক্ষে ও জুলুসকে সফল করার নির্মিত্তে সকাল থেকে রামু উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল হতে হাজার হাজার রবী প্রেমিক জনতা, বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন, সামাজিক, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ তাদের নিজস্ব ব্যানারে সকালে ৮ টার দিকে রামু উপজেলা পরিষদ চত্বরে মিলিত হয়।

সেখান থেকে জুলুস র‌্যালী বের হয়ে চৌমুহনী বাস ষ্টেশন, এভারেষ্ট টিচিং ইনস্টিটিউট হয়ে রামু বাইপাস চত্বর ঘুরে পুণরায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে গিয়ে মাহফিল ও নবীর জীবনী নিয়ে আলোচনা সভায় অংশ নেয়।

শেষে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধ কামনায় মুনাজাতের মধ্যে দিয়ে আজিমুশ শান মিলাদুন্নবী (স.) সমাপ্ত হয়।

এদিকে ইসলামী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে পবিত্র ১২ রবিউল আউয়াল উদযাপন উপলক্ষে এক র‌্যালী ও আলোচনা ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগী ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম। সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শাহজাহান আলী। স্বাহত বক্তব্য রাখেন ইসলামী ফাউন্ডেশনের সুপারভাইজার সাইফুদ্দিন খালেদ।