পেকুয়ায় জেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চিয়তা !

নিজস্ব প্রতিনিধি, পেকুয়া:
কক্সবাজারের পেকুয়ায় জেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে চরম অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। স্থানীয় ৪নং সাধারণ ওয়ার্ডের হেভিওয়েট প্রার্থী উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম প্রকাশ বিডিআর(অবঃ) জাহাঙ্গীরের হাইকোর্টে রীট পিটিশন দাখিলের ঘটনায় এমন ধারণা করছেন স্থানীয়রা।

জানা গেছে, চলতি মাসের ২৮ডিসেম্বর সারাদেশে জেলা পরিষদ নির্বাচনের দিনক্ষন নির্ধারিত রয়েছে। সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন ঘোষিত সারা দেশের ন্যায় কক্সবাজার জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৭ইউনিয়নের পেকুয়া উপজেলার শিলখালী ইউনিয়নকে চকরিয়া ব্লকে অনুর্ভুক্ত রেখে অপর ৬ইউনিয়ন যথাক্রমে পেকুয়া সদর, বারবাকিয়া, টইটং, রাজাখালী, মগনামা ও উজানটিয়া ইউপি’কে ৪নং ওয়ার্ড (পেকুয়া) ঘোষনা করা হয়। নির্বাচন প্রক্রিয়ায় গত ৩০নভেম্বর মনোয়ন পত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল। ৩ডিসেম্বর মনোনয়ন পত্র যাচাই-বাচাইয়ের দিন নির্ধারণ করা হয়। বাছাই পর্বে জাপা’র হেভিওয়েট প্রার্থী বিডিআর জাহাঙ্গীর আলমের সহ একাধিক ব্যক্তির মনোনয়নপত্র বাতিল করায় তারা আপিল প্রক্রিয়া নিয়ে ব্যস্ত হন। এর মধ্যে পেকুয়া উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম প্রকাশ বিডিআর জাহাঙ্গীর বিভাগীয় পর্যায়ে তার মনোনয়নপত্রের বৈধতা ঠেকাতে ব্যর্থ হন। পরে, তিনি তার প্রার্থীতার বৈধতা লাভে উচ্চ আদালতের স্মরণাপন্ন হন।

আজ সিনিয়র আইনজিবী শ.ম রেজাউল করিম ও ব্যারিষ্টার রাবেয়া আহমদের মাধ্যমে জাপা’র হেভিওয়েট প্রার্থী তার মনোনয়ন বৈধতার সময় সুযোগ প্রার্থনা জানিয়ে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চে রিট পিটিশান দায়ের করেন। যার পিটিশান নং-১৫৬৫২/০৮-১২-২০১৬ইং। বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন হাইকোর্টের ৩নং বেঞ্চ এ আবেদন গ্রহন করে বিডিআর জাহাঙ্গীরের প্রার্থীতার বৈধতার সময় সুযোগ কেন দেয়া হবেনা মর্মে সংশ্লিষ্টদের জবাব চেয়ে রুলনিশী জারীর মাধ্যমে আগামী রোববার পুনরায় শুনানীর সময় নির্ধারণ করেছেন।

ফলে, পেকুয়ায় জেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন নিয়ে দেখা দিয়েছে চরম নানা অনিশ্চয়তা। পেকুয়া উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম প্রকাশ বিডিআর (অবঃ) জাহাঙ্গীর এ প্রতিবেদকের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের মাধ্যমে তথ্যটি জানিয়েছেন।