রামুতে মৃত্যুর সাথে লড়ছে ছুরিকাহত এই যুবক

প্রজ্ঞানন্দ ভিক্ষু:
কক্সবাজারের রামুতে এক যুবককে ছুরি মেরে গুরুতর জখম করেছে দুর্বৃত্তরা। ছুরিকাহত যুবকের নাম সুমন বড়ুয়া (৩০) বলে জানা গেছে। সুমন বড়ুয়া রামুর দ্বীপশ্রীকুল (চরপাড়া) গ্রামের মৃত নির্মল বড়ুয়ার ছেলে।

সুমন বড়ুয়ার ছোট ভাই রাজিব বড়ুয়া জানান, গত ১৩ নভেম্বর উত্তর মিঠাছড়ি প্রজ্ঞামিত্র বন বিহারের কঠিন চীবর দানোৎসব ছিল। এই উপলক্ষে রাতে বুদ্ধকীর্তন এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রাতে অনুষ্ঠান দেখতে গিয়েছিলেন সুমন বড়ুয়া। রাত বারটার সময় বাড়ি ফেরার পথে বিমুক্তি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্রে হতে কিছু দূর সামনে চৌরাস্তার মাথায় বট গাছের নিচে আসলে একা পেয়ে ৩/৪ জন ব্যাক্তি তার গতিরোধ করে। এসময় তার সাথে টাকা যা ছিল তা নিয়ে নেয়। এরপর দুর্বৃত্তরা হাতের মোবাইল নিয়ে টানাহেচঁড়া শুরু করে।এক পর্যায়ে তাকে পেটসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে পর পর ছুরি মারতে থাকে। সুমন তাদের কাছ থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে নিতে দৌড়েঁ যাবার চেষ্টা করেন এবং চিৎকার করেন। এতে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

পরে রক্তাক্ত অবস্থায় সুমনকে নিকটবর্তী রামু হাসপাতালে নেওয়া হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করেন। সদর হাসপাতালে পৌছলে দিবাগত রাত ২টায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে দ্রুত চট্রগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। ১৪ নভেম্বর দুপুরে সুমন বড়ুয়ার অপারেশন হয়। অপারেশন করার পর থেকে এখন পর্যন্ত তিনি কারো সাথে কোন কথা বলতে পারছেন না।

সুমন বড়ুয়ার মা শোভা বড়ুয়া এ প্রতিবেদককে জানান, তার ছেলে অত্যন্ত নিরীহ প্রকৃতির। অনেক আগে থেকে স্বামীকে হারিয়ে তিনি দুই সন্তানকে নিয়ে কোন মতে সংসার চালাচ্ছিলেন। সুমন বড়ুয়া পরিবারের এক মাত্র ভরসা। তিনি ছেলের উপর এমন নির্দয় হামলার বিচার চান।

উল্লেখ্য, সুমন বড়ুয়া রামুর বাইপাস সংলগ্ন ইসলামী ব্যংকের দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত মোবাইল কোম্পানী রবি’র রামু এরিয়া সুপারভাইজার হিসেবে কাজ করেন।